ব্রেকিং নিউজ
Home » জাতীয় » আ. লীগ গণতন্ত্রে বিশ্বাসী বলেই মিছিল করছে বিএনপি
আ. লীগ গণতন্ত্রে বিশ্বাসী বলেই মিছিল করছে বিএনপি
--ফাইল ছবি

আ. লীগ গণতন্ত্রে বিশ্বাসী বলেই মিছিল করছে বিএনপি

অনলাইন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রে বিশ্বাসী বলেই বিএনপি আন্দোলন করতে পারছে। বিএনপির যারা খুনের সঙ্গে জড়িত, অগ্নিসন্ত্রাসের সঙ্গে জড়িত, জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িত, তাদের কোনো ছাড় নেই। ’

গতকাল শুক্রবার গণভবনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় সূচনা বক্তব্যে এসব কথা বলেন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা দেশের মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছি।

এটা করে যাব। আমার কথা হচ্ছে, আমাদের উন্নয়নের কথাগুলো মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে হবে। ভবিষ্যতের জন্য আমরা যে পরিকল্পনাগুলো নিয়েছি, সেটাও মানুষের কাছে তুলে ধরতে হবে। ’ তিনি বলেন, বিএনপির আমলে তারা লুটপাট, সন্ত্রাস, দুর্নীতি, জঙ্গিবাদ, বোমাবাজি, গ্রেনেড হামলা, অত্যাচার, নির্যাতন, খুন রাহাজানিসহ এমন কোনো অপকর্ম নেই, যা তারা করেনি। মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে বিজয় অর্জনকারী বাংলাদেশকে তারা বিশ্বের কাছে ভিখারি দেশে পরিণত করেছিল। তিনি আরো বলেন, ‘বাংলাদেশকে আজ আত্মমর্যাদাশীল একটা রাষ্ট্র করেছি। যে বাংলাদেশকে সারা বিশ্বের মানুষ একটা সম্মানের চোখে দেখে। ’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি। সে জন্য বিএনপি আজ স্বাধীনভাবে মিটিং-মিছিল করতে পারছে। কিন্তু যে সব আসামি অগ্নিসন্ত্রাসের সঙ্গে জড়িত, যারা রেল, বাস, সিএনজি, লঞ্চ প্রতিটি জায়গায় আগুন দিয়ে জীবন্ত পুড়িয়ে মানুষ হত্যা করেছে, যারা এই খুনের সঙ্গে জড়িত, অগ্নিসন্ত্রাসের সঙ্গে জড়িত, জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িত, আমি জানি তারা অনেকে লুকিয়ে ছিল। এখন বিএনপি মাঠে নেমেছে, তারাও মাঠে নামবে। এসব আসামি কিন্তু ধরতে হবে। তাদের উপযুক্ত শাস্তি দিতে হবে। তাদের ছাড় নেই। ’ তিনি বলেন, ‘আইন তার আপন গতিতে চলবে। আইন সবার জন্য সমান। এটা তাদের মাথায় রাখতে হবে। রাজনীতি করবে রাজনীতি হিসেবে। কিন্তু সন্ত্রাসী জঙ্গিবাদী রাজনীতি এ দেশে চলবে না। এটা চলতে দেওয়া হবে না। এটা মাথায় রাখতে হবে। ’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ এই উপমহাদেশের পুরনো সংগঠন। এই সংগঠন আরো শক্তিশালী হোক। মানুষের জন্য কাজ করে মানুষের হৃদয় জয় করে আমরা ক্ষমতায় এসেছি। জনগণের ভোটে এসেছি, জনগণের আস্থা নিয়ে এসেছি। সেই আস্থা আমরা ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছি। আওয়ামী লীগ আরো বেশি জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। ’ তিনি বলেন, ‘যারা সন্ত্রাসী, খুনি, দশ ট্রাক অস্ত্র, গ্রেনেড হামলাকারী, বোমা হামলাকারী— এদের দেশের জনগণ বিশ্বাস করে না। এদের পাশেও কোনো দিন থাকবে না। এদের ভোটও দেবে না। এটাই হলো বাস্তবতা। ’

আওয়ামী লীগের আগামী জাতীয় সম্মেলন সাদামাটাভাবে আয়োজনের নির্দেশ দেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি করতে হবে। কতগুলো উপকমিটি করতে হবে। যেহেতু বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক মন্দা যাচ্ছে, ফলে এবারের সম্মেলন আমরা কোনো শানশওকত করে করা যাবে না। খুব সীমিত আকারে, অল্প খরচে, সাদাসিদাভাবে সম্মেলন করতে হবে। ’

২৪ ডিসেম্বর আ. লীগের  জাতীয় সম্মেলন

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বৈঠকের বিরতিতে সন্ধ্যায় গণভবনের ফটকে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময়ে তিনি জানান, আগামী ২৪ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের ২২তম ত্রি-বার্ষিক জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ সম্মেলন এক দিনেই শেষ করা হবে। এর আগে সাধারণত আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন দুই দিনব্যাপী হতো।

আওয়ামী লীগের সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর সম্মেলনও শিগগিরই আয়োজন করা হবে বলে জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি জানান, আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা এ বিষয়ে দলের দপ্তর সম্পাদককে নির্দেশনা দিয়েছেন।

এ সময়ে ওবায়দুল কাদের জানান, আগামী ৪ ডিসেম্বর চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। সে সমাবেশে দলের সভাপতি শেখ হাসিনা উপস্থিত থাকবেন।

সূত্র: কালের কন্ঠ অনলাইন

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com