ব্রেকিং নিউজ
Home » জাতীয় » এক নারীকে নিয়ে দুই স্বামীর মারামারিতে একজন নিহত
এক নারীকে নিয়ে দুই স্বামীর মারামারিতে একজন নিহত
--প্রতীকী ছবি

এক নারীকে নিয়ে দুই স্বামীর মারামারিতে একজন নিহত

অনলাইন ডেস্কঃ

বাগেরহাটের শরণখোলায় এক নারীকে নিয়ে দুই স্বামীর সংঘর্ষে প্রাণ গেল প্রথম স্বামী মো. শাহ আলম বিশ্বাসের (৫০)। ঘটনার ১০ দিনের মাথায় গত শনিবার রাতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান শাহ আলম। দ্বিতীয় স্বামী আ. রহমান হাওলাদারের (৪৮) অবস্থাও আশঙ্কাজনক। তিনি চিকিৎসাধীন রয়েছেন খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। আজ সোমবার সকালে শাহ আলমের লাশ তাঁর নিজ বাড়িতে দাফন করা হয়েছে। এ ঘটনায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে শরণখোলা থানা সূত্রে জানা গেছে।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, প্রায় দুই যুগ আগে উপজেলার রায়েন্দা ইউনিয়নের পশ্চিম কদমতলা গ্রামের আব্দুর রহমান বিশ্বাসের ছেলে শাহ আলমের সঙ্গে বিয়ে হয় পশ্চিম খাদা গ্রামের মানিক হাওলাদারের মেয়ে নূপুর বেগমের (৩৫)। তাঁদের সংসারে তিনটি সন্তান রয়েছে। কিন্তু তাঁদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে চলছিল দাম্পত্য কলহ। এ কারণে শাহ আলমের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে দ্বিতীয় বিয়ে করেন নূপুর বেগম। এ নিয়ে দুই স্বামীর মধ্যে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়। এর জেরে গত ২২ জুলাই রাত ১২টার দিকে প্রথম স্বামী শাহ আলম বিশ্বাস চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে দ্বিতীয় স্বামী আ. রহমানকে। এ সময় রহমানের আত্মীয়-স্বজনরা ছুটে এসে শাহ আলমকেও আটকে বেদম মারধর করে। 

প্রথম পর্যায়ে গুরুতর জখম দ্বিতীয় স্বামী আ. রহমানের মৃত্যুর আশঙ্কা ছিল। যার ফলে প্রথম স্বামী শাহ আলমকে মারধরের বিষয়টি চাপা পড়ে যায়। যার কারণে ভীতসন্ত্রস্ত স্বজনরা শাহ আলমকে ওই রাতে গোপনে শরণখোলা হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে দ্রুত খুলনা মেডিক্যালে (খুমেক) রেফার্ড করান। পরবর্তী সময়ে খুমেকে অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় স্থানান্তর করা হয় শাহ আলমকে। ঘটনার ১০ দিনের মাথায় গত শনিবার (১ আগস্ট) রাত পৌনে ১০টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। 

শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস কে আব্দুল্লাহ আল সাইদ জানান, শাহ আলমের মৃত্যুর ঘটনায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে। এর আগে মারামারির ঘটনায় আ. রহমানের পক্ষে একটি মামলা দায়ের করা হয়।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*