ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » বিভাগীয় সংবাদ » চট্টগ্রাম বিভাগ » কক্সবাজারে নারী পর্যটকদের জন্য আলাদাভাবে বিশেষ জোনের উদ্বোধন
কক্সবাজারে নারী পর্যটকদের জন্য আলাদাভাবে বিশেষ জোনের উদ্বোধন

কক্সবাজারে নারী পর্যটকদের জন্য আলাদাভাবে বিশেষ জোনের উদ্বোধন

কক্সবাজার প্রতিনিধি:

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে আসা নারী ও শিশুদের সুরক্ষায় বালুচরে আলাদা জোনের উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল বুধবার (২৯ ডিসেম্বর) দুপুরে সৈকতের লাবনী পয়েন্টে ৬০০ ফুট দীর্ঘ এ জোন উদ্বোধন করেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ।
তিনি বলেন, সমুদ্রের বিশালতা দেখতে আসা নারী ও শিশুরা বিশেষ সুরক্ষায় থাকুক এটা চায় প্রশাসন। নারী-শিশুদের সমুদ্র দর্শন, স্নান নির্বিঘ্ন ও আনন্দময় করতে এ জোনের পথচলা। পরিবারের সঙ্গে আসা নারী-শিশুরা চাইলে সৈকতের যে কোনো স্থানে ভ্রমণ করতে পারে। কিন্তু যেসব নারী ও শিশু একলা এসে সৈকত দর্শন করেন তাদের নির্বিঘ্নে ভ্রমণ উপহার দিতেই আলাদা জোন করা। পর্যটনবান্ধব কক্সবাজার করতে আমরা সবাই কাজ করছি। হয়তো এ ছোট ছোট উদ্যোগগুলো পর্যটনকে এগিয়ে নিতে বড় ভূমিকা রাখবে।

তিনি আরও বলেন, ‘এ জোনে নারী-শিশুরা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে প্রবেশ করতে পারবেন। নির্বিঘ্নে সমুদ্রে গোসল করতে পারবেন। পুলিশ ও বীচকর্মী এ জোনের নিরাপত্তায় কাজ করবে।’ ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার জোনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘সৈকতে বেশি ঝুঁকিতে থাকে নারী ও শিশুরা। এবার সেই ঝুঁকি কমবে। পর্যটকদের জন্য আগে থেকেই কাজ করছি। জনবল কম হলেও আমরা পর্যটকদের নিরাপত্তায় কাজ করে যাব।’

জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘এ ধরনের উদ্যোগ পর্যটনকে আরও বেগবান করবে।’ সরেজমিনে দেখা যায়, লাবনী পয়েন্টের ঝিনুক মার্কেট সংলগ্ন এলাকা থেকে দক্ষিণে দেড়শ মিটার উর্মি রেস্টুরেন্টের শেষ মাথা পর্যন্ত লাল পতাকা দিয়ে ঘিরে রেখেছে প্রশাসন। দুপাশ সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। বিচকর্মী ও ট্যুরিস্ট পুলিশ সদস্যরা মাইকিং করে এ জোনে একক পুরুষ সদস্যের প্রবেশ নিষেধ বলে বার বার সতর্ক করেন ।এ সময় নির্ধারিত জোনে নারী ও শিশুদের উপস্থিতি দেখা না গেলেও জোনের উত্তর ও দক্ষিণে কয়েক হাজার নারী-পুরুষ ও শিশু পর্যটক সমুদ্র স্নান ও ঘোরাফেরা করতে দেখা গেছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ঝুমা ইসলাম বলেন, ‘বন্ধু-বান্ধব নিয়ে আমরা কক্সবাজার শিক্ষা সফরে এসেছি। এখন আমি নারী জোনে যাব আর আমার সহপাঠীরা থাকবে অন্য কোথাও। এটা কেমন দেখায়। তাই আমরা সবাই একসঙ্গে জোনের বাইরে আছি।’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু সুফিয়ান, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (পর্যটন সেল) সৈয়দ মুরাদ ইসলাম, ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আনোয়ার কামাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সম্প্রতি কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতে নিরাপত্তা ও ধর্ষণ নিয়ে দেশজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হওয়ায় এমন উদ্যোগ হাতে নেয় জেলা প্রশাসন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে সৈকতে এই বিশেষ জোন তৈরি করা হয়েছে।

 

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com