ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » বিভাগীয় সংবাদ » জেলার-খবর » কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে মহিষের হাল
কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে মহিষের হাল
--প্রেরিত ছবি

কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে মহিষের হাল

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
এক সময় কৃষকের ঘুম ভাঙত পাখির ডাকে। লাঙল-জোয়াল আর হালের গরু-মহিষ নিয়ে মাঠে বেরিয়ে পড়তেন। গরু-মহিষের হালের জোয়াল আর লাঙল ঝুলিয়ে জমিতে চলতো হালের চাষ।
কিন্তু কালের বিবর্তনে আধুনিকতার ছোঁয়ায় হারিয়ে যাচ্ছে মহিষের হাল। এখন গরু,মহিষ,নিয়ে কৃষককে মাঠে যেতে দেখা যায় না। গ্রামবাংলার মেঠো পথ ধরে হাঁটলে চোখে পড়ত মহিষের পাল। জমি চাষ থেকে শুরু করে পণ্যও বহন করা হত মহিষের গাড়িতে করে। সে যুগ পেরিয়ে সবকিছুতে এখন লেগেছে আধুনিকতার ছোঁয়া।
আধুনিক কৃষি ব্যবস্থাপনার কারণে গ্রামগঞ্জে গরু কিংবা মহিষ দিয়ে হালচাষ এখন আর তেমন একটা নেই। এখন মহিষ দিয়ে হাল চাষ দেখা স্বপ্নের মতো মনে হয়। প্রযুক্তির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে না পারলেও কৌশলগত দিক থেকে-মহিষ দিয়ে হালচাষ করে ফসল উৎপাদন করছেন অনেক কৃষকেরা।
এখনো বাংলাদেশের কিছু জায়গায় মহিষ দিয়ে হাল চাষ করতে দেখা যায়। সকাল বেলা হঠাৎ চোখে পড়ল! সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারাবাজার উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের বৈঠাখাই গ্রামের নিজামুদ্দীনের ক্ষেতে মহিষ দিয়ে চাষ করছেন একজন কৃষক। এ মহিষের হালচাষ দেখতে নতুন প্রজন্মের নবীনেরা সকাল বেলা ভীর জমায়।
মহিষের মালিক উপজেলার লক্ষীপুর ইউনিয়নের লক্ষীপুর গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে জাবেদ মিয়া। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চললেও এখনো দুটি মহিষ দিয়ে হালচাষের কাজটি করেন। স্থানীয়ভাবে আধুনিক যন্ত্র ট্রাক্টরের ব্যাপক চাহিদা থাকার পরেও মহিষ দিয়ে হাল চাষ করে তিনি সন্তুষ্ট। সবাই যেখানে ট্রাক্টর দিয়ে হালচাষ করছেন সেখানে তিনি তার নিজের দুটো মহিষ দিয়ে কখনো নিজের কখনো অন্যের জমি হালচাষ করেন। বর্ষা ও ধুলাট উভয় সময়ের চাষেই তিনি মহিষ দিয়ে হাল চাষ করে থাকেন।
আর মহিষের পেছনে তার তেমন একটা কষ্ট এবং ব্যয়ও হয় না। বরং মাঠে হালচাষ করতে গিয়ে মহিষকে বিভিন্ন দিক-নির্দেশনা দিতে দিতে সময় পার হয়ে যায় তার।
সুরমা ইউনিয়নের ৭ ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার, আব্দুল কাদির বলেন, বহুদিন পর আমাদের গ্রাম বৈঠাখাই এ এভাবে মহিষ দিয়ে হালচাষ করতে দেখলাম। মানুষ সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে আধুনিকতাকে গুরুত্ব দিচ্ছে।
ভূলে যাচ্ছে ঐতিহ্য ও ইতিহাস। এখন মহিষের হাল চাষ সচরাচর দেখা যায় না। ট্রাক্টর,পাওয়ার টিলারের কারণে হালচাষ করা অনেক সহজ হয়েছে এজন্য মহিষ দিয়ে হাল চাষের দরকার হয় না। দোয়ারাবাজার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শেখ মোহাম্মদ মুহসিন বলেন, আধুনিক কৃষি ব্যবস্থাপনায় কৃষকের কাজ আগের থেকে এখন উন্নত হয়েছে। তাই ট্রাক্টরের ব্যবহার সর্বত্র। হালের লাঙ্গল দিয়ে চাষ আগের মতো নেই বললেই চলে। আধুনিক কৃষি ব্যবস্থায় বিভিন্ন যন্ত্রের ব্যবহারে কৃষকের ফসল উৎপাদনের ব্যয় কমে, লক্ষমাত্রা আগের থেকে অনেকে বেড়েছে।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com