ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » অপরাধ ও দূর্নীতি » কুষ্টিয়ার হরিপুরের রিমির অর্ধগলিত লাশ উদ্ধারের এক দিন পর স্বামী আলামিন গ্রেপ্তার

কুষ্টিয়ার হরিপুরের রিমির অর্ধগলিত লাশ উদ্ধারের এক দিন পর স্বামী আলামিন গ্রেপ্তার

আকরামুজ্জামান আরিফ, কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: 
 দ্বিতীয় সংসারেও সুখ হলো না কুষ্টিয়ার হাটশ হরিপুর গ্রামের মিল্লাপাড়ার মাছ ব্যাবসায়ী কিরামত মালিথার মেয়ে রিমির। অবশেষে দ্বিতীয় স্বামী অালামিনের হাতে প্রাণ গেল তার । শুক্রবার হাটশ হরিপুর ইউনিয়ন গোরোস্থানে বাদ জুম্মায় রিমির লাশ দাপন হয়। এর আগে গত বৃহস্পতিবার রাতে কুষ্টিয়া শহরতলীর মোল্লা তেঘড়িয়া ক্যানেলপাড়া রান্না ঘর থেকে মাটি চাপা দেওয়া অবস্থায় রিমি (২২) নামে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
১৫ এপ্রিল রাত ৮ টার সময় রুবিনা নামে এক প্রতিবেশী বাড়ির ভিতরে পানি আনতে গেলে পঁচা গন্ধ পায়। বিষয়টি ঐ মহিলা বাড়ির মালিক মুরাদ হোসেনকে জানালে সে পুলিশকে সংবাদ দেয়। পুলিশ এসে গৃহবধূর অর্ধগলিত মাটি চাপা দেওয়া অবস্থায় লাশ উদ্ধার করে। পুলিশের ভাস্যমতে আনুমানিক এক মাস পূর্বে মৃত দেহটি মাটি চাপা দেওয়া হয়েছে। ময়না তদন্তের জন্য মৃত দেহটি কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। বাড়ির মালিক মুরাদ হোসেনের দেওয়া তথ্যমতে গত ফ্রেব্রুয়ারি মাসে খোকসার বাসিন্দা আলামিন (২৫) এক হাজার টাকা মাসিক চুক্তিতে বাসা ভাড়া নেয়। ওই বাসায় আলামিন ও তার স্ত্রী রিমি থাকত। কুষ্টিয়া জাহাঙ্গীর হোটেলের মিষ্টি বানানোর কারিগর হিসাবে কাজ করত আলামিন। আলামিন গত এক মাস যাবৎ ওই বাসায় ভাড়া থাকলেও আসত না। বাড়ির মালিক একাধিকবার মোবাবাইল ফোনে আলামিনের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাকে পায়নি। তিন মাস আগে বাসা ভাড়া নেওয়ায় প্রতিবেশীরাও তেমনভাবে চিনতো না আলামিন ও তার স্ত্রী রিমিকে। 
প্রতিবেশী ও পুলিশের ধারনা পারিবারিক কলোহের জেরে আলামিন তার স্ত্রী রিমিকে হত্যা করে মাটি চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়।
 এবিষয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানার ওসি (তদন্ত) নিশিকান্ত জানায়, প্রাথমিক ভাবে উদ্ধার করা অর্ধগলিত মৃত দেহটি আলামিনের স্ত্রীর। তবে ময়না তদন্ত শেষে নিশ্চিত করা যাবে বলে জানান।
 রিমির বড় বোন অাল্না বাদী হয়ে অালামিনের নামে একটি মামলা করেন যার মামলা নং ২৫- ১৬/৪/২০২১। পরে অাসামী অালামিন কে গতকাল বিকেলে পুলিশ গ্রেফতার করে। 
জানা যায় রিমির প্রথম বিয়ে মশান বাড়ই পাড়ার কৃষক,জাঙ্গীর এর সঙ্গে মুসলিম পারিবারিক অাইনে বিয়ে হলে র্দীঘ ১০ বছর সংসার করার পর এক ছেলে এক মেয়ে নিয়ে বাপের সংসারে ফেরত অাসে রিমি। ২০১৯ সালে রিমি নিজে পছন্ত করে দ্বিতীয় বিয়ে করে খোকসা মাছ পাড়া গ্রামের ছয়নউদ্দিন মোল্লার বড় ছেলে, কুষ্টিয়া জাহাঙ্গীর হোটেলের মিষ্টি বানানোর কারিগর আলামিনকে। বিয়ের পর থেকেই অালামিন কুষ্টিয়া শহরতলী মোল্লা তেঘড়িয়া ক্যানেলপাড়া বাসা ভাড়া নেন। রিমি কাজ করতো পাশে বাসা বাড়ীতে অার অালামিন কুষ্টিয়া মজমপুর গেটে জাহাঙ্গীর হোটেলের মিষ্টি বানানোর কারিগর হিসাবে কাজ করত।
 গত এক মাস পূর্বের কথা লম্পট অালামিন তার বন্ধু কে দিয়ে রিমির অাগের পক্ষর ছেলে কিমন ( ১৫) এর মোবাইল নং ০১৩০০৩৬৭১৮১ এই নান্বারে ০১৭৭৩১৫২৪৫৩ নং থেকে ফোন করে বলে তোমার মা ঢাকা কাজে গেলে সেখানে অন্য এক জনের সঙ্গে খারাপ কাজ করার সময় ধরা পড়ে এবং ঢাকা কাশেমপুর জেলখানাতে অাছে।এর পর থেকে তার ফোন বন্ধ করে দেয় অালামিন।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com