ব্রেকিং নিউজ
Home » জাতীয় » নির্বাচন কমিশন গঠনে রাষ্ট্রপতির ভূমিকা চায় জাসদ
নির্বাচন কমিশন গঠনে রাষ্ট্রপতির ভূমিকা চায় জাসদ
--সংগৃহীত ছবি

নির্বাচন কমিশন গঠনে রাষ্ট্রপতির ভূমিকা চায় জাসদ

অনলাইন ডেস্ক:

নির্বাচন কমিশন গঠনে আইন প্রণয়নে রাষ্ট্রপতির ভূমিকা চায় জাসদ। দলের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রপতিকে সার্চ কমিটির মাধ্যমে ‘যথোপযুক্ত ব্যক্তিদের খুঁজে বের করে ইসি গঠনের’ পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। গতকাল বুধবার বিকেলে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে ইসি পুনর্গঠন বিষয়ে সংলাপ শেষে এমনটা জানিয়েছে জাসদ। রাষ্ট্রপতির সরকারি বাসভবন বঙ্গভবনে এই সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়।

রাষ্ট্রপতির কাছে দেওয়া জাসদের লিখিত প্রস্তাবে সাংবিধানিক পদে অধিষ্ঠিতদের নিয়ে সার্চ কমিটির মাধ্যমে ইসি গঠনের কথা বলা হয়। আইন প্রণয়নের আগ পর্যন্ত সার্চ কমিটির মাধ্যমেই ইসি গঠনকে গ্রহণযোগ্য প্রক্রিয়া বলে উল্লেখ করেছে জাসদ।

সংলাপে জাসদের সাত সদস্যের প্রতিনিধিদল অংশ নেওয়ার কথা থাকলেও সংলাপে যান ছয় নেতা। তাঁরা হলেন সভাপতি হাসানুল হক ইনু, সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার, কার্যকরী সভাপতি রবিউল আলম, স্থায়ী কমিটির সদস্য মোশারেফ হোসেন, সহসভাপতি মীর হোসাইন আখতার ও রেজাউল করিম তানসেন।

সংলাপ শেষে বঙ্গভবনের সামনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে পাঁচ বছর পর পর বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়। এ অবস্থা থেকে স্থায়ী সমাধানে আমরা রাষ্ট্রপতির ভূমিকা প্রত্যাশা করছি। নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে ভবিষ্যতে আইনি কাঠামো করতে রাষ্ট্রপতি যেন সরকারকে দিকনির্দেশনা দেন, আমরা সে কথা বলেছি।’

ইনু আরো বলেন, সংবিধানে ইসি গঠনের সুনির্দিষ্ট আইন প্রণয়নের তাগিদ দেওয়া থাকলেও দুর্ভাগ্য এখনো আইন হয়নি। এমন পরিস্থিতিতে তুলনামূলকভাবে যথোপযুক্ত দক্ষ ব্যক্তিদের খুঁজে বের করতে সার্চ কমিটি গঠন একটি গ্রহণযোগ্য প্রক্রিয়া বলে জাসদ মনে করে।

ইসি গঠনে আইন প্রণয়নে জাতীয় সংসদের উদ্যোগ নিতে হবে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে ইনু বলেন, রাষ্ট্রপতি সংবিধানের রক্ষক, সংবিধানের একটা নির্দেশনা বাস্তবায়নের জন্য তিনি ভূমিকা রাখতে পারেন। আইন সংসদই করবে, কিন্তু রাষ্ট্রপতি ভূমিকা রাখবেন, সরকারকে পরামর্শ দেবেন। সংবিধানের ১১৮ নং অনুচ্ছেদ বাস্তবায়নে সরকার যেন উদ্যোগ নেয়, সে জন্য রাষ্ট্রপতি উদ্যোগ নেওয়ার এখতিয়ার রাখেন। এত দিন কেউ নেননি। সুতরাং সব মহলকে বিব্রত হওয়া থেকে রেহাই দিতে ভবিষ্যতের জন্য একটি আইনি কাঠামো করার উদ্যোগ নেবেন।

অতীতের নির্বাচন কমিশন নিয়ে বিতর্ক ছিল। একই প্রক্রিয়ায় নির্বাচন কমিশন গঠন ভালো হবে কি না জানতে চাইলে ইনু বলেন, ‘গত কয়েকটি নির্বাচন কমিশন অনুসন্ধান কমিটির মাধ্যমেই হয়েছে। কখনো বিতর্ক দেখা দিয়েছে, কখনো বিতর্ক দেখা দেয়নি। সুতরাং আমরা সংলাপে অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে যতটা সম্ভব বিতর্কের ঊর্ধ্বে দক্ষ ও গ্রহণযোগ্য একটি ইসি গঠনে রাষ্ট্রপতির উদ্যোগকে সহযোগিতা করা বাঞ্ছনীয় বলে মনে করেছি।’

সংলাপে রাষ্ট্রপতি কী বলেছেন জানতে চাইলে জাসদ সভাপতি বলেন, ‘তিনি সার্চ কমিটি অবিলম্বে গ্রহণ করবেন। সার্চ কমিটি যদি ইসি গঠনের ক্ষেত্রে কোনো নাম চায়, তাহলে সেখানে আপনারা সহযোগিতা করবেন। তবে সার্চ কমিটি যে দুজন করে নাম দেবে, তার থেকে উনি চূড়ান্ত করবেন। আমরা শুধু অনুরোধ করেছি, আপনি যে দক্ষতার মানুষই দেন না কেন, তিনি যেন ম্যান অব ইন্টিগ্রিটি হয়। সৎ, দক্ষ, গ্রহণযোগ্য মানুষ হলে ইসি ভালো নির্বাচন উপহার দেবে।’

সংলাপকে বিএনপির ‘নাটক’ বলা প্রসঙ্গে জাসদের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে হাসানুল হক ইনু বলেন, সংলাপকে যাঁরা নাটক বলছেন বা প্রহসন বলছেন, তাঁদের উদ্দেশে বলব, সংলাপে আসার পরই এটি প্রহসন, না ভালো জিনিস বুঝবেন। সুতরাং সংলাপে না গিয়ে প্রহসন বা নাটক বলা বাঞ্ছনীয় না। রাষ্ট্রপতির এই উদ্যোগকে স্বাগত না জানিয়ে যাঁরা নাকচ করে দিচ্ছেন, তাঁরা কিন্তু সংলাপ প্রক্রিয়াকে বানচাল করতে চাচ্ছেন। যাঁরা নির্বাচন বানচাল করতে চান, তাঁরা সংলাপও বানচাল করবেন। বিএনপি ২০১৪ ও ২০১৮ সালে নির্বাচন বানচাল করার চক্রান্ত করেছিল, তারা আগামী নির্বাচন বানচাল করার ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে সংলাপ বানচাল করতে চাচ্ছে।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com