ব্রেকিং নিউজ
Home » প্রচ্ছদ » বুলেট বোমায় কভিড থেকে রক্ষা মিলবে না-মার্কিন প্রেসিডেন্ট
বুলেট বোমায় কভিড থেকে রক্ষা মিলবে না-মার্কিন প্রেসিডেন্ট
--ফাইল ছবি

বুলেট বোমায় কভিড থেকে রক্ষা মিলবে না-মার্কিন প্রেসিডেন্ট

অনলাইন ডেস্ক:

বৈশ্বিক কভিড মহামারি মোকাবেলায় বিজ্ঞান ও সম্মিলিত রাজনৈতিক সদিচ্ছার ওপর জোর দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। গত জানুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে উচ্চ পর্যায়ের বিতর্কে তাঁর প্রথম বক্তৃতায় তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র বৈশ্বিক আলোচনার টেবিলে ফিরে এসেছে। বিশ্বে সমস্যা সমাধানে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীকে ব্যবহার করা হবে না বলে স্পষ্ট জানিয়েছেন তিনি।

সন্ত্রাস মোকাবেলার অঙ্গীকার করে বাইডেন বলেছেন, ২০০১ সাল আর ২০২১ সাল এক নয়। তিনি গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার ওপর জোর দিয়েছেন। এর পাশাপাশি তিনি বলেন, জনগণের প্রয়োজন যে সরকার বোঝে না তার ঝুঁকি সন্ত্রাসের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়।

নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের চলতি ৭৬তম অধিবেশনের সাধারণ বিতর্ক পর্ব শুরু হয়েছে গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায়। কভিড মহামারির মধ্যে এবারই প্রথম বিশ্বনেতারা সশরীরে যোগ দিয়েছেন জাতিসংঘের উচ্চ পর্যায়ের বিতর্কে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ বিভিন্ন দেশের নেতারা বিতর্ক অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী পর্বে উপস্থিত ছিলেন।

মালদ্বীপের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল্লাহ শহিদের সভাপতিত্বে অধিবেশনের শুরুতে জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস, ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট বোলসোনারো বক্তব্য দেন। এরপর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তাঁর বক্তৃতায় বলেন, ‘বুলেট ও বোমা দিয়ে কভিড-১৯ বা তার নতুন নতুন ধরন মোকাবেলা করা যাবে না। এই মহামারির বিরুদ্ধে লড়াই করতে হলে আমাদের প্রয়োজন বিজ্ঞান ও রাজনৈতিক সদিচ্ছার সমন্বয়। বিশ্বজুড়ে জীবন রক্ষায় আমাদের অক্সিজেন, পরীক্ষা ও চিকিৎসার সুযোগ বৃদ্ধি এবং যত দ্রুত সম্ভব আমাদের বাহুতে টিকা নেওয়া প্রয়োজন।’

আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন, অগণতান্ত্রিক ব্যবস্থা থেকে কভিড মহামারি ও জলবায়ু পরিবর্তনের মতো বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতিকে গুরুত্ব দেওয়া অপরিহার্য ছিল।

আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রত্যাহার প্রসঙ্গে বাইডেন বলেন, তাঁর সরকার ২০ বছরের যুদ্ধ শেষ করেছে। শান্তি প্রতিষ্ঠায় তাঁর সরকার অঙ্গীকারবদ্ধ। তিনি বলেন, জনগণের জন্য ও জনগণের দ্বারা সরকারই শ্রেষ্ঠ ব্যবস্থা।

বাইডেন বলেন, ‘এমন একসময় আমি বক্তব্য দিচ্ছি যখন ২০ বছরে এই প্রথমবারের মতো যুক্তরাষ্ট্র কোনো যুদ্ধ করছে না।’

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় স্বার্থ রক্ষার পাশাপাশি মিত্রদেরও রক্ষার অঙ্গীকার করেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘লক্ষ্য স্পষ্ট ও অর্জনযোগ্য হতে হবে এবং বিশ্বজুড়ে সব সমস্যার সমাধানে অবশ্যই আমেরিকান সামরিক বাহিনীকে ব্যবহার করা হবে না।’ বাইডেন স্পষ্ট বলেন, ‘সামরিক শক্তির ব্যবহার প্রথম নয় বরং তা হবে শেষ অবলম্বন।’

যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে বিশ্বব্যাপী কভিড টিকা দেওয়ার কথা উল্লেখ করেন বাইডেন। তিনি বলেন, আজ বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের আয়োজনে বৈশ্বিক কভিড-১৯ শীর্ষ সম্মেলনে কভিড মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্র নতুন করে সহযোগিতা ঘোষণা করবে।

জলবায়ু পরিবর্তনকে সীমান্তহীন সংকট হিসেবে উল্লেখ করেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট। তিনি বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি দেড় ডিগ্রির মধ্যে সীমিত রাখার ওপর জোর দেন। জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় তিনি উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য ১০০ বিলিয়ন ডলার ব্যয়েরও ঘোষণা দেন জাতিসংঘে।

যুক্তরাষ্ট্রকে আবার বৈশ্বিক আলোচনায় ফিরিয়ে আনার তথ্য তুলে ধরে বাইডেন বলেন, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় তিনি এ বছরই ন্যাটো, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, আসিয়ান ও ভারত, জাপান ও অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে কোয়াড অংশীদারিতে সম্পৃক্ত হয়েছেন। তিনি ইন্দো প্যাসিফিকের মতো অঞ্চলগুলোতে যুক্তরাষ্ট্রের অগ্রাধিকারমূলক দৃষ্টির কথা উল্লেখ করেন।

বাইডেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্র বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে আবারও সম্পৃক্ত হয়েছে। বিশ্বজুড়ে টিকা সরবরাহে কোভ্যাক্সের সঙ্গে কাজ করছে। যুক্তরাষ্ট্র প্যারিস জলবায়ু চুক্তিতে ফিরেছে। আগামী বছর জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদে ফেরার জন্য কাজ করছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বলেন, বৈশ্বিক বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির জন্য তাঁর দেশ নতুন নিয়ম প্রণয়ন করবে। বৈশ্বিক ক্ষুধা মোকাবেলায় এক হাজার কোটি ডলার ব্যয়ের অঙ্গীকার করেন তিনি।

জো বাইডেন ফিলিস্তিন-ইসরায়েল সংকট সমাধানে দ্বিরাষ্ট্র সমাধানের ওপর জোর দেন। তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে অগ্রগতির চেষ্টা আমাদের কোনোভাবেই বাদ দেওয়া ঠিক হবে না।’

বাইডেন বলেন, সন্ত্রাস মোকাবেলায় সবাইকে ঘরে ও বাইরে নজর রাখতে হবে। বিশ্বসম্প্রদায়ের জন্য অপেক্ষাকৃত ভালো ভবিষ্যতের লক্ষ্যে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র চীনের জন্য নতুন কোনো শীতল যুদ্ধ চায় না।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*