Monday , 15 July 2024
E- mail: news@dainiksakalbela.com/ sakalbela1997@gmail.com
ব্রেকিং নিউজ
যারা ইসলামকে পুঁজি করে ধর্ম ব্যবসা করেন তারা আগুন সন্ত্রাসী: আল নাহিয়ান খান জয়

যারা ইসলামকে পুঁজি করে ধর্ম ব্যবসা করেন তারা আগুন সন্ত্রাসী: আল নাহিয়ান খান জয়

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ ও স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও আজকে যারা ইসলামকে পুঁজি করে ধর্ম ব্যবসা করেন তারা আগুন সন্ত্রাসী, ৭১ এর আদলে যারা স্বাধীনতার মাসে বিশৃঙ্খলা করে, ইসলামের নাম ব্যবহার করে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে, তারা কোনোভাবেই ইসলামের হেফাজত করছে না বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়।

বুধবার (৩১ মার্চ) সন্ধ্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবে সাধারণ সম্পাদক জাবেদ রহিম বিজন ও প্রেসক্লাবের সিনিয়র সাংবাদিকদের সঙ্গে মত বিনিময় কালে তিনি এ কথা বলেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে হেফাজতের এ তাণ্ডবকে জঙ্গি কার্যক্রম আখ্যায়িত করে তিনি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

জয় বলেন, তারা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল হোসেন রুবেল ও সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন শোভনসহ জেলা আওয়ামিলীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আল-মামুন সরকারের অফিস ও বাড়ি পুড়িয়ে ক্ষান্ত হয়নি তারা আমাদের বাবা-মায়ের ওপরও হাত তুলেছে। এ ধরনের হেফাজতে ইসলামের নামে জঙ্গিবাদী কাপুরুষ কুলাঙ্গাদের বিচারের দাবি জানায়।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ মাঠে রয়েছে। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া ছাত্রলীগ যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত রয়েছি।

তাছাড়া বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব মিলনায়তন, সুর সম্রাট আলাউদ্দিন সংগীতাঙ্গন, আলাউদ্দিন খাঁ পৌর-মিলনায়তন ও শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা চত্বরসহ বেশ কয়েকটি সরকারি-বেসরকারি স্থাপনায় হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করায় আল নাহিয়ান খান জয় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় কালে আরও উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সংসদের সহসভাপতি, মুরাদ হায়দার টিপু, ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী সজীব, সাইফ বাবু, রাকিব হোসেন, ইয়াজ আল রিয়াদ, মহিন উদ্দিন, তৌহিদুল ইসলাম চৌধুরী জহির, তিলোত্তমা শিকদার, দেবাশিষ শিকদার সিদ্ধার্থ, জিয়াসমিন আরা রুমা, তানজিদুল ইসলাম শিমুল, নুরে আলম আশিক ও রায়হান উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. নাজিম উদ্দিন ও মো. ফেরদৌস আলম, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সম্পাদক ইন্দ্রনীল দেব শর্মা রনি, আবদুল্লাহ আল মাসুদ লিমন, দেওয়ান ইমাম বাকের, শামীম পারভেজ বারি, শাহিন তুহিন রেজা, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় উপ-সম্পাদক এস এম রিয়াদ হাসান, মিরাজুল ইসলাম শিমুল, নাজির হোসেন মামুন, বোরহান উদ্দিন মুকুল, আমানউল্লাহ আমান ও আনোয়ার মিয়া, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহ-সম্পাদক রুবেল শিকদার ও কার্যনির্বাহী সদস্য আলি।

এছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রোকেয়া হল ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও রোকেয়া হল ছাত্র সংসদের সাবেক সহ-সাধারণ সম্পাদক ফাল্গুনী তন্বী, সরকারি তিতুমীর কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি মো. রিপন মিয়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি মিকাইল হোসেন হিমেল ও সাধারণ সম্পাদক লিমন আল স্বাধীন প্রমূখ।।

উল্লেখ্য, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে এবং ঢাকা ও চট্টগ্রামে মাদ্রাসা ছাত্রদের ওপর পুলিশের হামলার খবরে গত ২৬ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যাপক তাণ্ডব চালায় হেফাজতে ইসলামের কর্মীরা। এসময় তারা পুলিশ সুপারের কার্যালয়, সিভিল সার্জনের কার্যালয়, মৎস্য কর্মকর্তার কার্যালয়, ভূমি কর্মকর্তা কার্যালয়, পৌরসভা কার্যালয়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব, জেলা পরিষদ কার্যালয় ও ডাকবাংলো, খাঁটিহাতা হাইওয়ে থানা ভবন, আলাউদ্দিন সংগীতাঙ্গন, আলাউদ্দিন খাঁ পৌরমিলনায়তন ও শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা চত্বরসহ বেশ কয়েকটি সরকারি-বেসরকারি স্থাপনায় হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply