ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » বিভাগীয় সংবাদ » জেলার-খবর » সাতক্ষীরায় বাণিজ্যিকভাবে দুম্বার চাষ শুরু 
সাতক্ষীরায় বাণিজ্যিকভাবে দুম্বার চাষ শুরু 

সাতক্ষীরায় বাণিজ্যিকভাবে দুম্বার চাষ শুরু 

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : উপকূলীয় সাতক্ষীরায় প্রথম মধ্যপ্রাচ্যের প্রাণী দুম্বার খামার শুরু করেছেন আব্দুস সালাম খোকা।

তিনি সাতক্ষীরা শহরের লষ্করপাড়া গ্রামের মৃত. কাজী আব্দুল মোকিতের ছেলে

ভেড়া-ছাগলের মতই লালনপালন আর গরু খামারের চেয়ে অধিক লাভবান হওয়ার খামারটি ব্যবসায়ীক ভাবে গড়ে তোলার স্বপ্ন খোকার

৭মাস আগে ৪টি বড় দুম্বা দিয়ে খামার শুরু করে বর্তমানে খামারে ৫টি দুম্বা রয়েছে।

সাতক্ষীরা প্রথম এ দুম্বা খামার তৈরি হওয়ায়  প্রতিদিন বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষ দেখার ভিড় জমাচ্ছে সেখানে।

বাড়ির অঙ্গিনায় খামারের জায়গা না থাকায় শহর থেকে সাত কিলোমিটার দূরে আগড়দাঁড়ি ইউনিয়নের চুপড়িয়া গ্রামে মৎস্য ঘেরের সাথে দুম্বার খামারটি গড়ে তুলেছেন তিনি।

২০১০ সাল থেকে ৫০ বিঘা মৎস্য ঘেরের পাশাপাশি গরুর খামার পরিচানলা করে আসছেন তিনি

ছেলের পরার্মশে, গরুর থেকে দুম্বা পালনে লাভবান হওয়ায় ৭মাস আগে পাবনার ঈশ্বরদী থেকে ২টি ও ঢাকার জয়দেবপুর থেকে আরও ২টি দুম্বা সংগ্রহ করেন তিনি। ইতিমধ্যে একটি বাচ্চা ও জন্ম নিয়েছে তার খামারে বর্তমানে খামারটিতে মোট ৫টি দুম্বা রয়েছে। বাচ্চাটির মূল্য বর্তমানে দেড় লক্ষ টাকা।
একটি প্রাপ্ত বয়স্ক দুম্বা প্রতি ৬ মাস পর পর বাচ্চা দেয়।

খামারটি দেখাশোনার দায়িত্বে থাকা আশরাফ আলী বলেন, এদেরকে সকাল ও বিকেল দিনে ২বার খাবার দেওয়া হয়। এবং নিয়মিত ঘর পরিষ্কার করতে হয়। এরা খুব শান্ত প্রাণী এদের শরীরে শক্তি অনেক রেগে গেলে সামলাতে কষ্টকর হয়ে যায় ।

আশাশুনি থেকে খামার দেখতে আশা মনিরুল ইসলাম বলেন, দুম্বা আগে কখনো সরাসরি এভাবে দেখার সৌভাগ্য হয়নি। সাতক্ষীরার প্রথম একটি খামার গড়ে তুলছে দেখে খুব ভালো লাগছে। কারন মরুভূমির দেশের প্রাণী সাতক্ষীরায় প্রথম দেখলাম।

আগরদাড়ি গ্রামের সাজিদা বেগম বলেন, বাড়ির পাশে দুম্বার খামারে দেখে খুবই ভালো লাগে।  আগে তো দেখার সুযোগ হয়নি। এখানে প্রতিদিন বিভিন্ন  জায়গা থেকে লোকজন দুম্বা দেখার জন্য আসে

দুম্বা খামারী আব্দুস সালাম খোকা বলেন, উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরায় দুম্বার খামার তৈরী করা সম্ভব এখানে সারাবছর তাপমাত্রা বেশি থাকায়। দুম্বা পালনের জন্য উপযোগী পরিবেশ বলে মনে করি।
দুম্বা পালনে তেমন কোন খরচ হয়না ছাগলের  মতন ঘাস,পাতা, ভুষি এসব খায়। ছাগলের মত লালন পালন করা যায় প্রত্যেকটির দুৃ্ম্বার জন্য দৈনিক ৬০ টাকা খরচ হয়। স্বাভাবিক ছাগল-ভেড়া সেসব খাবার খায় দুম্বাও সেগুলোই খাচ্ছে। রোগ-বালাই একেবারে নেই বলা যায় দুৃম্বা পালন সহজ ও লাভ জনক হওয়ায় আগামীতে পরিকল্পনা রয়েছে খামারটি বড় পরিসরে তৈরি করার।

সাতক্ষীরা জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. এ বি এম আব্দুর রউফ জানান, দুম্বা মরুভূমির প্রাণী।  সাতক্ষীরা অঞ্চলের আবহাওয়ায় পশুটি পালনের জন্য উপযোগী। দুম্বা পালন করে আর্থিকভাবে প্রচুর লাভবান হওয়ার সুযোগ রয়েছে। বিশেষ করে কুরবানীর সময় পশুটির চাহিদা ও প্রচুর দুম্বা পালনের ফলে একদিকে যেমন আমিষের চাহিদা পূরণ করবে অন্যদিকে আর্থিকভাবেও লাভবান করবে খামারীদের। বাংলাদেশে তথা সাতক্ষীরা উপকূলীয় অঞ্চলে এটা সম্ভাবনাময় একটি প্রানী। আব্দুস সালাম খোকা নামের একজন খামারী সাতক্ষীরায় প্রথম দুম্বা পালন শুরু করেছেন। আমরা তাকে পরামর্শসহ ঔষধ পত্র দিয়ে সহযোগিতা করবো।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com