ব্রেকিং নিউজ
Home » জাতীয় » সেদিন মানবাধিকার কোথায় ছিল?

সেদিন মানবাধিকার কোথায় ছিল?

অনলাইন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আজকে তো অনেক মানবাধিকারের কথা বলা হয়, কারো অস্বাভাবিক মৃত্যুতে বিচার চাওয়া হয়। তাহলে পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট আমরা যারা আপনজন হারিয়েছি, তারা কী অপরাধ করেছিলাম? সেদিন মানবাধিকার কোথায় ছিল?’

প্রধানমন্ত্রী গতকাল মঙ্গলবার সকালে তাঁর ছোট ভাই ও জাতির পিতার কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৯তম জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজিত ‘শেখ রাসেল দিবস-২০২২’-এর উদ্বোধনী এবং ‘শেখ রাসেল পদক-২০২২’ প্রদান অনুষ্ঠানে দেওয়া ভাষণে এ কথা বলেন। তিনি গণভবন থেকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের এই আয়োজনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্বকে শিশুদের জন্য সুন্দর ও বাসযোগ্য করতে যুদ্ধ ও অস্ত্র প্রতিযোগিতা বন্ধ হয়ে শান্তি ফিরে আসুক, এটাই তাঁর প্রত্যাশা।

তিনি বলেন, ‘আমরা একটি শান্তিপূর্ণ পৃথিবী চাই। আমরা যুদ্ধ চাই না; ধ্বংসযজ্ঞ, অস্ত্র ব্যবসা, কোনো শিশুকে উদ্বাস্তুতে পরিণত করা এবং কাউকে গুলি করে হত্যা করা হোক, আমরা তা চাই না। ’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে বিশ্বব্যাপী যুদ্ধ (রাশিয়া-ইউক্রেন)। কত শিশু আজকে এতিম হয়ে যাচ্ছে, কত শিশু কষ্ট পাচ্ছে। আমরা বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছি, সেখানেও তো শিশুরা পরভূমে রিফিউজি হিসেবে মানুষ হচ্ছে। ’

তাঁর নিজেরও রিফিউজি থাকার এবং বন্দি অবস্থায় নিদারুণ কষ্টে দিন কাটানোর অভিজ্ঞতার উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তাই আমরা যুদ্ধ চাই না, কোনো সংঘাত চাই না। রাসেলের মতো আর কোনো শিশুকে যেন জীবন দিতে না হয়। আমরা চাই, প্রত্যেকের ভবিষ্যৎ সুন্দর হোক, উন্নত হোক। ’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পঁচাত্তরের পর দেশে ১৯টি ক্যু হয়েছে, আমাদের ক্যান্টনমেন্টের ভেতরে হাজারো অফিসার-সৈনিক হত্যা করা হয়েছে, স্বজনরা তাঁদের লাশও পায়নি, গুম করে ফেলা হয়েছে। আমাদের আওয়ামী লীগের হাজার হাজার নেতাকর্মী এদের হাতে নির্যাতিত হয়েছে, কারাভোগ করেছে, মৃত্যুবরণ করেছে; কাজেই আর আমরা এই স্বজন হারানোর বেদনা, কান্না শুনতে চাই না। ’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজকের শিশুরাই হবে আগামী দিনের কর্ণধার। আজকের শিশুরাই এ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে, অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করবে। কোনো মানবাধিকার যেন লঙ্ঘন না হয়, কোনো শিশু যেন নির্যাতিত না হয়। প্রত্যেকেই যেন সুন্দর জীবন পায়, সেটাই আমরা চাই। আর সেই লক্ষ্য নিয়েই আমাদের কাজ আমরা করে যাচ্ছি। আজকে রাসেল নেই, আমরা তো সবই হারিয়েছি, কিন্তু বাংলাদেশটা যেন সামনের দিকে এগিয়ে যায়। ’

প্রধানমন্ত্রী ১৫ আগস্টের ঘৃণ্য হত্যাকাণ্ডের প্রসঙ্গে বলেন, ‘পঁচাত্তরের ১৫ই আগস্ট নিরপরাধ নারী ও শিশু হত্যার বিচার বন্ধে ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স জারি করা হয়, কেউ খুনিদের বিচার করতে পারবে না। অর্থাৎ আমি আমার বাবা, মা, ভাই এবং যে স্বজনদের হারিয়েছি, তাঁদের জন্য বিচার চাইতে পারব না, মামলা করতে পারব না। ’

সে সময় তিনি এবং ছোট বোন শেখ রেহানার বিদেশে থাকার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ‘ফিরে এসে আমি যখন মামলা করতে যাই বা তার আগেও চেষ্টা করেছি, কিন্তু সেই মামলা করা যায়নি; কারণ আইনে বাধা। আমার প্রশ্ন—আজকে তো অনেক মানবাধিকারের কথা বলা হয়, কারো অস্বাভাবিক মৃত্যুতে বিচার চাওয়া হয়। তাহলে পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট আমরা যারা আপনজন হারিয়েছি, তারা কী অপরাধ করেছিলাম? আমার একটা প্রশ্ন—তখন কেউ তো আমাদের পাশে দাঁড়ায়নি। তাহলে আমরা মানবতার, মানবাধিকারের এত গালভরা কথা শুনি কেন? আমার প্রশ্নের জবাব কি কেউ দিতে পারবে? হ্যাঁ, আমার দল এবং বাংলার জনগণ আমাদের সঙ্গে ছিল। ’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিচার করতে পেরেছি তখনই, যখন অনেক ঘাত-প্রতিঘাত, চড়াই-উতরাই পেরিয়ে আমি সরকার গঠন করতে পেরেছি এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হতে পেরেছি। সেই ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স বাতিল করে সেই বিচার করতে হয়েছে। সে বাতিলের পথেও অনেক বাধা ছিল। ’

উচ্চ আদালতে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার ডেথ রেফারেন্সের রায়ের শুনানিতে বিচারকদের কারো কারো ‘বিব্রত বোধ’ করার কথাও তিনি উল্লেখ করেন।

সরকারপ্রধান বলেন, পঁচাত্তরের পর যাঁরা ক্ষমতায় এসেছেন—সেনা শাসক জিয়াউর রহমান, জেনারেল এরশাদ বা খালেদা জিয়া—প্রত্যেকেই এই খুনিদের মদদ দিয়েছেন, পুরস্কৃত করেছেন। তাঁদের মুখেই আজ গণতন্ত্রের কথা, ভোটের কথা, মানবাধিকারের কথা শুনতে হয়।

তিনি বলেন, সত্যকে মুছে ফেলার যে অপচেষ্টা এবং দেশে বিচারহীনতার যে সংস্কৃতি শুরু হয়েছিল, জাতির পিতা হত্যাকাণ্ডের বিচার হওয়ার মাধ্যমে আজকে জাতি তা থেকে মুক্তি পেয়েছে। আর বারবার আঘাত আসার, হত্যাচেষ্টার পরও এই দিনটি দেখবেন বলেই হয়তো সৃষ্টিকর্তা মহান রাব্বুল আলামিন তাঁকে বাঁচিয়ে রাখেন।

‘দুরন্ত প্রাণবন্ত শেখ রাসেল’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহেমদ পলক সম্পাদিত ‘দুরন্ত প্রাণবন্ত শেখ রাসেল’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লেখা ‘আমাদের ছোট রাসেল সোনা’ এনিমেটেড চলচ্চিত্রের ট্রেলারও প্রদর্শিত হয়।

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ব্যক্তিগত ও প্রাতিষ্ঠানিক বিজয়ীদের মধ্যে ‘শেখ রাসেল পদক-২০২২’ বিতরণ করেন। শেখ রাসেল দিবস-২০২২ উপলক্ষে দেশব্যাপী কুইজ, ক্রীড়া, শিল্পকলা ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝেও পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

অনুষ্ঠানে শেখ রাসেলের ওপর একটি ভিডিও ডকুমেন্টারি এবং আইসিটি বিভাগের নির্মিত শেখ রাসেল দিবস-২০২২ উপলক্ষে একটি থিম সং পরিবেশিত হয়। পরে শিশুদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও উপভোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

সূত্র: কালের কন্ঠ অনলাইন

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com