স্বঘোষিত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক মাদারীপুর ছাত্রলীগে!

0
1170

স্টাফ রিপোর্টার   
সম্প্রতী মাদারীপুর জেলা ছাত্রলীগের নিয়ন্ত্রনাদিন রাজৈর উপজেলা, কালকিনী উপজেলা , মাদারীপুর সদর উপজেলাসহ স্থানীয় কলেজগুলোতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের নির্দেশনা মোতাবেক ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়।
কিন্তু গত (১৪/৯/২০১৯) পরবর্তীতে সাবেক নৌপরিবহন মন্ত্রীর ছেলে, মাদারীপুর জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আসিফ খান( বিবাহিত) ও সাবেক জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক(কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ থেকে প্রত্যাহারকৃত) তানবির মাহমুদ আবির স্বাক্ষরে নতুন করে মাদারীপুর পৌর,সরকারি নাজিমুদ্দিন কলেজ ও রাজৈর পৌর ছাত্রলীগের কমিটি দেওয়া হয়।
কোন ধরনের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা ছাড়াই আসিফ খান নিজেকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি দাবি করেন এবং বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ থেকে শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে প্রত্যাহার হওয়া তানভির মাহমুদ আবির নিজেকে সাধারণ সম্পাদক দাবি করেন।
এ নিয়ে জেলা ছাত্রলীগ সহ অন্যন্ন ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়।
তারই পরিপ্রেক্ষিতে আজ মাদারীপুর জেলা ছাত্রলীগের প্যাডে প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে সকল নেতাকর্মীদের কে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য বলা হয়।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়,,,,
বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের নির্দেশনায় মাদারীপুর জেলা ছাত্রলীগের জরুরী সিদ্ধান্ত মোতাবেক জানানো যাচ্ছে যে, সম্প্রতি কিছু লোক নিজেদের হীন ব্যাক্তিস্বার্থ হাসিল করা ও মাদারীপুর জেলা ছাত্রলীগকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অপপ্রয়াসে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সিদ্ধান্ত অমান্য করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেসবুকের মাধ্যমে) নিজেদের মোনগড়া সিদ্ধান্ত মোতাবেক নিজেকে মাদারীপুর জেলা ছাত্রলীগের বিভিন্ন পদে আসীন দাবি করে বিভিন্ন পোস্ট করছেন এবং গঠনতন্ত্র বিরোধী কর্মকান্ডে লিপ্ত রয়েছে। যাহা সম্পূর্ণরূপে অসাংগঠনিক ও অগঠনতান্ত্রিক।
মাদারীপুর জেলা ছাত্রলীগ এর তিব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে এবং এই ধরনের বিভ্রান্তিকর পোস্ট করা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানাচ্ছে। সেই সাথে এরুপ বিভ্রান্তিকর পোস্ট দেখে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য মাদারীপুর জেলা ছাত্রলীগের সকল নেতাকর্মী ও শুভানুধ্যায়ীদের অবগত করা যাচ্ছে।
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ মাদারীপুর জেলা শাখা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে উদ্ধৃত ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার সকল নির্দেশনা মানতে বদ্ধ পরিকর।
এই বিষয়ে মাদারীপুর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক তানভীর মাহমুদ আবির বলেন, গত ২৪/৭/২০১৯ ইং আমি ফেসবুকে দেখতে পাই আমাকে ছাত্রলীগ থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে। এই বিষয়ে আমি ব্যাক্তিগতভাবে কোন চিঠি পাইনি। সো যেহুতু চিঠি পাইনি সেহেতু আমি অব্যহতি পেয়েছি কি না আমি এই বিষয়ে নিশ্চিত নয়।
তিনি আরও এর পর মাদারীপুর জেলা ছাত্রলীগের সকল নেতাকর্মী মিলে বসে আমরা আসিফ খান(সাবেক সহ-সভাপতি) কে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে ঘোষনা করি।
এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় নির্দেশনা আছে কিনা জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন যে তারা নিজেরাই করেছেন।
আসিফ খান বিবাহিত তার ছবি আমরা দেখলাম এই বিষয়ে প্রশ্ন করলে তানভীর মাহমুদ আবির ব্যাস্ত আছেন, পরে কথা বলবেন বলে ফোন কেটে দেন।


  • এই বিষয়ে জেলা ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি ও সাবেক নাকসু ভিপি জাহিদ হোসেন অনিক বলেন,
    ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র মোতাবেক কেউ বিয়ে করলে অটোমেটিক ছাত্রলীগের পোস্ট থেকে অব্যহতি পান সেখানে আসিফ খান বিয়ে করার পরে সহ-সভাপতি থেকে কিভাবে নিজে নিজেই নিজেকে সভাপতি দাবি করছে?
    এবং শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে গত ২৪/৭/২০১৯ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের তৎকালিন সভাপতি/ সাধারণ সম্পাদক তানভীর কে প্রত্যাহার করে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বায়েজিদ হাওলাদার কে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নিয়োগ দেন।

সেখানে তানবির নিজেকে সাধারণ সম্পাদক দাবি করার কোন অবকাশ নাই। তারা নিজেরাই কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দেশনা ও ছাত্রলীগের সকল গঠনতন্ত্র অমান্য করে দেশরত্ন শেখ হাসিনাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিকে নিজেদের ক্ষমতার বহিঃপ্রকাশ করছে।
মাদারীপুর জেলা ছাত্রলীগ একটি ঔক্যবদ্ধ ও শুশৃঙ্খল পরিবার। তারা এই পরিবার কে ধ্বংস করে তাদের নিজেদের একচ্ছত্র আদিপত্য প্রতিষ্ঠা করা অপচেষ্টা করছে।
আপনাদের যেহেতু তানবীর বলেছে যে তিনি কোন চিঠি পাননি। আপনারা জানেন তানবির কে প্রত্যাহার করার পর ওরা জনদূর্ভোগ সৃষ্টিকারী হরতাল অবরোধ সহ ভাংচুর করেছেন।
এখন প্রশ্ন তিনি কোন চিঠি না পেলে তারা এ ধরনের কর্মসূচী কেন দিয়েছিল?
অনিক আরও বলেন, এ সবকিছুই ষড়যন্ত্র মূলক এবং ব্যক্তিস্বার্থ হাসিল করার জন্য একটি কুচক্রী মহলের নির্দেশনায় হচ্ছে । আমরা মাদারীপুর জেলা ছাত্রলীগ এসব ষড়যন্ত্রের তিব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এবং সকল কে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য অনুরোধ করছি।

কোন মন্তব্য নেই

একটি উত্তর ত্যাগ