ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » উপজেলার খবর » ৩ লক্ষ টাকা চাঁদা না দেওয়ায় ৫ হাজার লেবু গাছ কেটে দিল রামুর রেঞ্জ কর্মকর্তা
৩ লক্ষ টাকা চাঁদা না দেওয়ায় ৫ হাজার লেবু গাছ কেটে দিল রামুর রেঞ্জ কর্মকর্তা

৩ লক্ষ টাকা চাঁদা না দেওয়ায় ৫ হাজার লেবু গাছ কেটে দিল রামুর রেঞ্জ কর্মকর্তা

রামু, কক্সবাজার , প্রতিনিধি: সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ‘ রামুর জোয়ারিয়ানালায় সুলতান মাহমুদ নামে এক রেঞ্জ কর্মকর্তাকে ৩ লক্ষ টাকা চাঁদা না দেওয়ার কারণে ৫ হাজার ফল বাগানের বিশালাকার একটি লেবু বাগান সম্পুর্ণভাবে কেটে দেয়া হয়েছে।এসময় কর্তনকৃত লেবু গাছে পুষ্টিকর অগনিত লেবুর ছোট-বড় সাইজের হাজার হাজার ফল দেখা যায়। ধারণা করা হচ্ছে এসব লেবুর বাজার মূল্য ৮-৯ লক্ষ টাকা হওয়ার অনুমান করেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।
অভিযোগকারী নজির আহমেদ বলেন, ‘গত কিছুদিন পূর্বে আমার ছেলেকে ডেকে নিয়ে রেঞ্জকর্তা ১০ দিনের ভিতর ৩ লক্ষ টাকা চাঁদা দিতে হবে, সরকারি জায়গায় বাগান করার করণে।  টাকা দিতে বিলম্ব বা না দিলে পুরো বাগান নষ্ট করে দেওয়া হবে বলে হুশিয়ারি ও দিয়েছিল, এমন অভিযোগ ভুক্তভোগী নজির আহমেদ এর।এদিকে বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধম ফেইসবুকে এ ভাইরাল হলে এই বর্বর আচরণের জন্য  ক্ষোভ ও অনেকেই রেঞ্জ কর্মকর্তার চাকরিচ্যুত করা সহ তার ক্ষতিপূরণের জন্য  আহবান জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কাছে । 
ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের অভিযোগ- রেঞ্জ কর্মকর্তার দাবিকৃত ৩ লাখ টাকা চাঁদা না দেয়ায় পরিকল্পিতভাবে এসব গাছ কেটে দেয়া হয়েছে। এখন এই কর্মকর্তা বলছে সরকারি রিজার্ভের জায়গায় কেউ গাছ লাগাতে পারেনা। গাছগুলো লাগানোর সময় উৎসাহ দিলেও গত কিছুদিন যাবৎ ৩ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছিল রেঞ্জ কর্মকর্তা সুলতান মাহমুদ। শেষ পর্যন্ত টাকা দিতে অপারগ হওয়ায় ৩ই আগস্ট আমার ৫ হাজার লেবু গাছ কেটে ফেলছে, এখন আমি শেষ। এটাই আমার একমাত্র সম্বল, বলে হাউমাউ করে কান্নাকাটি করছিল নজির আহমেদ। 
অভিযুক্ত জোয়ারিয়ানালা রেঞ্জ কর্মকর্তা সুলতান মাহমুদ টিটু চাঁদা দাবির বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। তিনি জানিয়েছেন-বন বিভাগের সংরক্ষিত বনে বাগানটি সৃজন করায় সেটি কেটে দেয়া হয়েছে। 
জোয়ারিয়ানালা ইউপি চেয়ারম্যান কামাল শামসুদ্দিন আহমেদ প্রিন্স জানিয়েছেন-নজির আহমদের সৃজিত বাগানের বিপুল পরিমান লেবু গাছ কেটে দেয়ার বিষয়টি তিনি শুনেছেন। এ ব্যাপারে তিনি খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন।
রামু উপজেলা প্রশাসনের কাছে এব্যাপারে জানতে চাইলে, রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার ( ইউএনও) প্রণয় চাকমা বলেন, ‘ বিষয়টি তিনি অবগত রয়েছেন। রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমা বলেন, ‘ সরকারি রিজার্ভ জায়গায় কেউ চাইলেও ভোগদখল কিংবা গাছ লাগা বা প্রবেশ ও করতে পারবে না। এই বিষয়ে সরকারি বিধিনিষেধ ( আইনগত বাধা ) রয়েছে।তিনি আরও বলেন, ‘ রেঞ্জ কর্মকর্তার ” চাঁদা ” দাবির কথাটা সত্য নয় ; এরপরও তিনি তদন্ত করে উভয়পক্ষকে ডেকে একটা সমাধানের ব্যবস্থা করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। 

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*