Friday , 30 October 2020
E- mail: news@dainiksakalbela.com/ sakalbela1997@gmail.com
Home » দৈনিক সকালবেলা » বিভাগীয় সংবাদ » জেলার-খবর » লক্ষ্মীপুর জেলা সদস্য মোশারফ হোসেন (বাঘা) মেঘনার ভাঙ্গনের মুখে জঙ্গলার বাদঁ নির্মাণ করেছে।
লক্ষ্মীপুর জেলা সদস্য মোশারফ হোসেন (বাঘা) মেঘনার ভাঙ্গনের মুখে জঙ্গলার বাদঁ নির্মাণ করেছে।

লক্ষ্মীপুর জেলা সদস্য মোশারফ হোসেন (বাঘা) মেঘনার ভাঙ্গনের মুখে জঙ্গলার বাদঁ নির্মাণ করেছে।

 
মোঃ ফয়েজ কমলনগর প্রতিনিধিঃ (লক্ষ্মীপুর)
লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে বিস্তীর্ণ জনপদ বিলীন হয়ে যাচ্ছে। বর্ষা মৌসুম হওয়ায় ভাঙনের তীব্রতা আরো বেড়েছে।
এই বর্ষার ভাঙনে চর ফলকন ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক চেয়ারম্যান ডা. ওবায়েদুল হকের বাড়ি বিলীন হয়ে গেছে। তার বাড়ির সামনের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঈদগাঁ, মসজিদ-মাদ্রাসা, ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র, কমিউনিটি ক্লিনিক ও পারিবারিক কবরস্থান এখন ভাঙনের মুখে। বিলীন হচ্ছে, আশপাশের এলাকাও। এমন পরিস্থিতিতে লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদের সদস্যা জনাব মোশারেফ হোসেন (বাঘা)’র উদ্ধোগে জংলাবাঁধ দিয়ে ভাঙন ঠেকাতে চেষ্টা করছেন স্থানীয়রা।
মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) ভাঙন কবলিত ফলকন ইউনিনেয়র লুধূয়া এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, স্থানীয় বাঘা পরিবারের লোকজনসহ আশপাশের বাসিন্দারা বাঁশ ও গাছের খুঁটি দিয়ে বেড়া তৈরি করেন। বেড়ার ভেতর দিয়েছেন ঝোপ-জঙ্গল। গত দুই সপ্তাহে এভাবে প্রায় ২৩০ মিটার বাঁধ তৈরি করেছেন তারা।
স্থানীয়রা বলছেন, জংলাবাঁধের কারণে নদীর ঢেউ পাড়ে সরাসরি আঘাত করতে পারবে না। এতে ভাঙন কিছুটা হলেও প্রতিরোধ হবে। এভাবে বর্ষা মৌসুম পার করতে পারলে আগামী শুক্ন মৌসুমে ভাঙন প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করবে সরকার এমনটাই প্রত্যাশা তাদের।
এখন এখানকার হাজার হাজার পরিবার নদী ভাঙন আতঙ্কে দিশেহারা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ ভিটেমাটি রক্ষায় তারা জংলাবাঁধ দিয়ে নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। ভয়াবহ ভাঙন থেকে রক্ষা পেতে কমলনগরের বাসিন্দারা বিভিন্ন সময় মানববন্ধন, সভা-সমাবেশ ও সড়ক অবরোধের মতো কর্মসূচি দিয়েছেন। দাবির মুখে, গত বছর সরকারিভাবে এক কিলোমিটার তীর রক্ষাবাঁধ নির্মাণ করা হয়। মাত্র এক কিলোমিটার বাঁধ কমলনগরের নদী ভাঙন প্রতিরোধে যথেষ্ট নয়। প্রয়োজন আরো আট কিলোমিটার।
জংলাবাঁধের উদ্যোক্তা লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদের সদস্য ও ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার বাসিন্দা মোশারফ হোসেন বাঘা বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ আশপাশের বিভিন্ন স্থাপনা ও ঘরবাড়ি রক্ষায় জংলাবাঁধের উদ্যোগ নিয়েছি। স্থানীয়দের সহযোগিতায় প্রায় ২৩০ মিটার বাঁধের কাজ শেষ হয়েছে। ব্যক্তিগত টাকায় এ বাঁধ না দিলে এতোদিনে প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঈদগাঁ, মসজিদ-মাদ্রাসা, ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র, কমিউনিটি ক্লিনিক ও পারিবারিক কবরস্থানসহ আশপাশের স্থাপনাগুলো নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যতো। গত ১ সাপ্তাহ এ জংলা বাদেঁর কারন তেমন আঘাত হানতে পারেনি। আসা করি এভাবে বর্ষার মৌসুম কাটাতে পারলে শুক্ন মৌসুমে সরকার নদীর কাজে হাত দিবেন।

About Sakal Bela

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*