লক্ষ্মীপুর জেলা সাহিত্য সংসদের বঙ্গবন্ধু স্মরণে আবৃত্তি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত।

আখতার হোসাইন খান
বিশেষ প্রতিনিধি 
জাতির পিতা ছিলেন দুঃখী মানুষের নেতা – শাহজাহান কামাল এমপি।
কবিতাকে হৃদয়ে ধারণ করতে হবে – লক্ষ্মীপুরের জেলা প্রশাসক।
লক্ষ্মীপুর জেলা সাহিত্য সংসদের উদ্যোগে শোকাবহ ১৫ আগস্ট উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু স্মরণে আবৃত্তি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে শাহজাহান কামাল এমপি বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতিসংঘে বাংলায় বক্তৃতা দিয়ে বাংলা ভাষা ও বাঙালিকে সারা বিশ্বে পরিচয় করিয়েছেন। তিনি শুধু জাতির পিতা নন, বাংলার দুঃখী মানুষের নেতা ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর লেখা অসমাপ্ত আত্মজীবনী ও কারাগারে রোজনামচা এ দুটো বই পড়ার জন্যে নতুন প্রজন্মের প্রতি আহ্বান জানান। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, “লক্ষ্মীপুরে জেলা, রামগঞ্জে গভর্নর, রায়পুরে টেক্সটাইল মিল দিয়েছি”। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। শিক্ষা সাহিত্য ও সংস্কৃতির উন্নয়নসহ অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিকভাবে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়তে তিনি সক্ষম হবেন। নতুন প্রজন্মের কন্ঠে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রচিত কবিতা আবৃত্তির অনুষ্ঠান সাহিত্য সংসদ এর একটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ বলে তিনি অভিহিত করেন। তিনি গত ৩০ আগষ্ট, লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
অনুষ্ঠানের উদ্বোধক জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল বলেন, বাংলা সাহিত্যের সবচেয়ে বড় বিষয় কবিতা। নতুন প্রজন্ম ফেসবুক নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও সাহিত্যের চর্চা কমে গেছে। তিনি বলেন কবিতাকে হৃদয়ে ধারণ করতে হবে। কারন কবিতার ভেতরে সবকিছুই আছে। কবিতার মাধ্যমে মানুষের পরিবর্তন ঘটানো সম্ভব। তাই শিক্ষার্থীদের কবিতা পাঠে উৎসাহিত করে তুলতে হবে। 
সাহিত্য সংসদ এর সভাপতি, ডা. মোঃ সালাহউদ্দিন শরীফ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব এস আর আরমান শাকিল। স্বাগত বক্তব্য দেন, সাহিত্য সংসদের সাধারণ সম্পাদক গাজী গিয়াস উদ্দিন। বক্তব্য রাখেন, জেলা পরিষদ এর প্যানেল চেয়ারম্যান ফরিদা ইয়াসমিন লিকা, সাহিত্য সংসদ এর উপদেষ্টা কবি মুজতবা আল মামুন, বঙ্গবন্ধু পরিষদ জেলা সভাপতি শাহজাহান কামাল, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট জেলা সভাপতি জাকির হোসেন ভূইয়া আজাদ, প্রগতি লেখক সংঘ জেলা সভাপতি বিশিষ্ট মুুক্তিযোদ্ধা আমির হোসেন মোল্লা, সাহিত্য সংসদ এর সিনিয়র সভাপতি মাহবুবুল বাসার, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা এডভোকেট রাসেল মাহমুদ মান্না ও মোজাম্মেল হায়দার মাসুম ভূইয়া, স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ জেলা সভাপতি মাহাবুবুর রশিদ চৌধুরী প্রমুখ। 
অনুষ্ঠানে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কবিতা আবৃত্তিতে অংশগ্রহনকারী বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরন করা হয়। অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় ছিলেন সাহিত্য সংসদ এর সহ-সভাপতি মোশারফ হোসেন চৌধুরী। স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন জাতীয় কবিতা পরিষদ লক্ষ্মীপুর জেলা সভাপতি কবি এসএম জাহাঙ্গীর। তাছাড়া কবি মারুফ আহমেদ পাটওয়ারী, কবি ভিপি বেলায়েত ও কবি সোলায়মান চৌধুরীকে পুরস্কৃত করা হয়। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সংগীত পরিবেশন করেন যুগ্ম সম্পাদক ফাহমিদা মাহবুব রূপা, এন্টি মনি মজুমদার ও সুমি। তবলায় ছিলেন, বেণী মাধব।