Wednesday , 21 October 2020
E- mail: news@dainiksakalbela.com/ sakalbela1997@gmail.com
Home » দৈনিক সকালবেলা » বিভাগীয় সংবাদ » নওগাঁয় মহিলা ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে অর্থ আদায়ের অভিযোগ

নওগাঁয় মহিলা ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে অর্থ আদায়ের অভিযোগ

নওগাঁ প্রতিনিধিঃ
নওগাঁর আত্রাইয়ে সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য বিউটি বেগম ও তার সহযোগী নাজমা বেগমের বিরুদ্ধে মাতৃত্ব ভাতা, স্বামী পরিত্যাক্তা ,দুঃস্থমাতা কার্ড করে দেওয়ার নামে করে তার ওয়ার্ডে প্রায় শতাধিক নারীর কাছে থেকে অর্থ আদায়সহ সুবিধাভোগীদের নিকট হতে পথের মাঝে টাকা কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।
অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার বিশা ইউনিয়নের ১,২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য মোছা. বিউটি বেগম ও তার সহযোগী নাজমা বেগম সুপরিকল্পিতভাবে কৌশলে প্রায় শতাধিক দরিদ্র মহিলাকে অফিসের নাম ভাঙ্গিয়ে প্রশাসন ও সচেতন মহলের চোখে ধুলোদিয়ে বিধবা ভাতা, স্বামী পরিত্যাক্তা ভাতা,ও মাতৃত্ব ভাতার কার্ড করে দেওয়ার নামে ৯৭জন নারীর কাছে থেকে কয়েক লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
অফিস সুত্রে জানা যায়, সরকার দরিদ্র গর্ভবতী নারীদের নিরাপদ মাতৃত্ব নিশ্চিত করার লক্ষ্যে জনপ্রতি মাসে ৫০০টাকা হারে ২বছরে ১২হাজার টাকার ভাতার দেওয়ার কর্মসূচি চালু করেছে। ওই কর্মসূচির আওয়াতায় প্রতি ছয় মাসে একজন নারী ৩হাজার টাকা পান। সুবিধাভোগিদের জন্য ২বছর পর্যন্ত এ টাকা সহায়তা পাওয়ার বিধান রয়েছে। ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে উপজেলার বিশা ইউনিয়নে ৯টি ওয়ার্ডে ৭৯জন দরিদ্র গর্ভবতী নারী ও শিশুর মা এ সুবিধা পাবেন।
তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায়, সংরক্ষিত ইউপি সদস্য বিউটি বেগম ও তার সহযোগী নাজমা বেগম অত্যন্ত সুকৌসলে গ্রামের গর্ভবতী নারী ও শিশুর মাকে ও বিধবা, দুঃস্থ মাতার ভাতার কার্ড করে দিতে চেয়ে অফিস খরচ চাইলে ভুক্তভোগীরা কেহ এনজিও হতে ঋণ নিয়ে, কেহ গহনা বিক্রি করে, কেহ শেষ সম্বল বাড়ীর গরু ছাগল বিক্রয় করে পাঁচ থেকে আট হাজার টাকা পর্যন্ত বিউটি বেগম এর হাতে তুলে দেয়। দুই বছর অতিক্রান্ত হলেও তারা কেউ আজও ভাতার কার্ড পাইনি। নিরুপায় হয়ে প্রতিকার চেয়ে ইউএনও বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন তারা। অভিযোগ করায় বিউটি বেগম ও তার সাঙ্গ পাঙ্গ ভুক্তদের নানান রকম ভয়ভীতি দেখানোসহ এমনকি প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে।
ভুক্তভোগী রাসেদা বেগম জানান, মাতৃত্ব ভাতার কার্ড করে নেওয়ার জন্য সাত হাজার টাকা বিউটিকে দিয়েছি । পরবর্তীতে টাকা উত্তোলন করে বাড়ী ফিরে আসার সময় আমার কাছে থেকে জোরপূর্বক সাড়ে ৯ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। পরে ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করে।
অপর এক ভুক্তভোগী ডালিয়া বিবি জানান, ভাতার কার্ড করে নেওয়ার জন্য আমার কাছে থেকে ১২হাজার টাকা নিয়েছে। কিন্ত এখন দুস্থমাতার কার্ড করে দেয়নি।
এবিষয়ে জানা জন্য বিউটি বেগম ও নাজমা বেগমের বাড়ীতে গেলে সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে বাড়ীতে তালা ঝুলিয়ে গা ঢাকা দেয়। পরে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে বিউটি বলেন তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। বিউটির সহযোগি নাজমার মোবাইল বন্ধ পাওয়ায় তার সাথে কথাবলা সম্ভব হয়নি।
এ ব্যাপারে উপজেলা মহিলা বিষয়ক অফিসার মো. মোয়াজ্জেম হোসেন ও সমাজসেবা অফিসার মো. আরিফ হোসেন জানান, কার্ড করতে কোন প্রকার খরচ লাগেনা। আমাদের নাম ভাঙ্গিয়ে কেহ যদি অর্থনৈতিক ফায়দালুটে তার দায় শুধু তাদের।
বিশা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান মোল্লা বলেন, বিষয়টি আমার জানা নাই। তবে এটা মহিলা মেম্বারে দায়িত্ব। আর কেহ আমার কাছে অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ছানাউল ইসলাম বলেন, বিউটির বিরুদ্ধে নানা ধরনের অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগ গুলো একত্রিত করে সরকারী কর্মকর্তা দিয়ে তদন্ত করে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

About Sakal Bela

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*