গোয়ালন্দে ধর্ম ত্যাগ করে মুসলিম প্রেমিককে হিন্দু গৃহবধুর বিয়ে, বিয়ে বৈধতা না পাওয়ায় দুজনকেই ভ্রাম্যমাণ আদালতের সাজা

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধিঃ

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে হিন্দু পরিবারের এক গৃহবধু স্বেচ্ছায় কোর্ট এফিডেফিটের মাধ্যমে সনাতন ধর্ম ত্যাগ করে মুসলিম পরিবারের প্রেমিককে বিয়ে করেছে। তবে ভ্রাম্যমান আদালতে ধর্মত্যাগ বৈধতা পেলেও বিয়ে বৈধতা না পাওয়ায় বৃহস্পতিবার তাদেরকে সাজা দিয়ে জেল হাজতে পাঠায়। ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক ও গোয়ালন্দ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আব্দুল্লাহ আল মামুন এ রায় প্রদান করেন।

জানা যায়, ধর্মান্তিত ওই গৃহবধুর নাম সীমা প্রামানিক (২৫)। মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করার পর তিনি রাফিয়া সুলতানা মরিয়ম নাম ধারণ করেছেন। তিনি রাজবাড়ী জেলার কালুখালী উপজেলার খাগজানা গ্রামের মৃত হরিপদ প্রামানিকের মেয়ে । ৮ বছর আগে গোয়ালন্দ উপজেলার ছোটভাকলা ইউনিয়নের কেউটিল গ্রামের সনাতন ধর্মাবলম্বী অশোক সরকারের ছেলে মানিক সরকারের সাথে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তাদের মধ্যে বনিবনা না হওয়ায় দাম্পত্য জীবনে অশান্তি বিরাজ করছিল। তাদের ৬ বছর বয়সী একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে স্বামীর বাড়ী থেকে বাবার বাড়ীতে যাতায়াত কালে পদ্মা-গড়াই পরিবহনের বাস চালক মীর মোঃ রফিকুল হাসানের সাথে প্রায় ৮ মাস আগে সীমার পরিচয় হয়। পরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মীর মোঃ রফিকুল হাসান (৩০) বালিয়াকান্দী উপজেলার পাইককান্দী গ্রামের মোঃ লুৎফর রহমানের ছেলে।

এদিকে প্রেমের টানে সীমা গত ১৪ অক্টোবর স্বামীর বাড়ী থেকে রাজবাড়ী নোটারী পাবলিকের কার্যালয়ে গিয়ে হলফনামার মাধ্যমে তার স্বামীর সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটায়। এরপর একই মাসের ২১ তারিখে সীমা পুনরায় রাজবাড়ীতে গিয়ে নোটারী পাবলিকের কার্যালয় থেকে কোর্ট এফিডেফিট করে হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহন করেন। সীমা প্রামানিক তার নিজের নাম পরিবর্তন করে রাফিয়া সুলতানা মরিয়ম নামকরণ করে। ওইদিনই কোর্ট এফিডেফিটের মাধ্যমে সীমা-ও মীর মোঃ রফিকুল হাসান বিবাহের হলফনামা তৈরী করে।

অপরদিকে মরিয়মের পূর্বের স্বামী তার ঘর থেকে নগদ ৮০ হাজার টাকা স্বর্নালংকার চুরির অভিযোগ এনে সীমার বিরুদ্ধে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এরপর গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ বুধবার রাতে (৬ নভেম্বর) রফিকুল ও মরিয়মকে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করেন। ভ্রাম্যমান আদালত বৃহস্পতিবার বিকালে কোর্ট এফিডেফিট ও তাদের স্বীকারোক্তি পর্যালোচনা করে হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণকে বৈধ ঘোষনা করে। কিন্তু বিবাহ রেজিষ্ট্রি বা কাবিন নামা না থাকায় বিবাহ বন্ধন আইন সিদ্ধ হয়নি ঘোষনা করে তাদের উভয়কে ৩ দিনের কারাদন্ড প্রদান করেন।

এ বিষয়ে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও গোয়ালন্দ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, যেহেতু তারা উভয়ে পূর্নবয়স্ক সে হিসেবে তারা ধর্ম ত্যাগ করে অন্য ধর্ম গ্রহণ করতেই পারে। বিবাহ বন্ধনেও আবদ্ধ হতে পারে। কিন্তু সে বিয়ের বৈধতা পেতে হলে বিবাহ রেজিষ্ট্রি বা কাবিন করে আইন মানতে হবে। তাদের বিয়ের কাবিন নামা না থাকায় ৩ দিনের সাজা দিয়ে রাজবাড়ীর জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।