বড় আকৃতির গাছ নিয়ে হুমকির মুখে পড়েছে পরিবারটি

ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি ঃ বিশাল আকৃতির ডমুর গাছ নিয়ে একটি পরিবারের জন্য জীবন মরন হয়ে দাড়িয়েছে, তবুও গাছের মালিক গাছটি কর্তন করছে না ফলে যে কোন সময় এই গাছটি ভেঙ্গে পড়ে যান মালের ক্ষতি হওয়ার সম্ভানা দেখা দিয়েছে।

ডোমার উপজেলা ভোগডাবুরী ইউনিয়নের চিলাহাটি বাজারের মৃত জহুরুল হক প্রধান এর পুত্র শাহারিয়ার কবির পল্লব বাড়ীর ভিতরে ঘরের সঙ্গে লাগা ৪০ ফুট লম্বা ও ৭ ফুট গোল আকারের বিশাল আকৃতির ডমুর গাছ যার বয়স প্রায় ৫০ বছর, সম্পূর্ন রুপে  পল্লবের বাড়ীর আঙ্গীনায় ডুকে পড়েছে। যাহা যে কোন সময় ঝড়ে বা অন্য কোন কারনে ভেঙ্গে পরে তার ঘর বাড়ী তছনছ করে দিতে পারে এবং যান মালের ক্ষতি হতে পারে। গাছ ও জমির পাশ্ববর্তি মালিক আল্বহাজ্ব মিজানুর রহামান তুহিনকে দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে গাছটি কর্তন করার জন্য বারবার বলা সত্বেও সে কর্ণপাত করেনি। সে অন্য লোকের সাথে মামলার কথা বলে সময় অতিবহীত করতেছে বলে জানা যায়। ইতি পূর্বে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও গণ্যমান্য ব্যাক্তির কাছে নালিশ করেও বাড়ির মালিক কোন ফল পায় নাই।  শাহারিয়ার কবির তার যান মাল রক্ষার্থে  গাছটি জরুরি ভাবে কর্তন করার আবেদন জানিয়েছে স্থানীয় পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে। গাছটি জরুরি ভিত্তিতে কর্তন না করলে যে কোন মুহুত্তে ভেঙ্গে যান ও মালের বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারে বলে স্থানীয়রা আসঙ্খা করছে।

এ ব্যাপারে গাছ ও জমির মালিকের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন যে, জমির উপরে মামলা আছে এবং স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাই আমি গাছ কাটার অনুমতি দিতে পারি না। গাছের অন্য মালিক সগির আহম্মেদ বুলুর সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন যে, আমি গাছটি ডাল-পালা কাটার জন্য পল্লবকে বহুবার বলেছি কিন্তু সে আমার কথায় কান দেয়নি।

ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি ঃ বিশাল আকৃতির ডমুর গাছ নিয়ে একটি পরিবারের জন্য জীবন মরন হয়ে দাড়িয়েছে, তবুও গাছের মালিক গাছটি কর্তন করছে না ফলে যে কোন সময় এই গাছটি ভেঙ্গে পড়ে যান মালের ক্ষতি হওয়ার সম্ভানা দেখা দিয়েছে।

ডোমার উপজেলা ভোগডাবুরী ইউনিয়নের চিলাহাটি বাজারের মৃত জহুরুল হক প্রধান এর পুত্র শাহারিয়ার কবির পল্লব বাড়ীর ভিতরে ঘরের সঙ্গে লাগা ৪০ ফুট লম্বা ও ৭ ফুট গোল আকারের বিশাল আকৃতির ডমুর গাছ যার বয়স প্রায় ৫০ বছর, সম্পূর্ন রুপে  পল্লবের বাড়ীর আঙ্গীনায় ডুকে পড়েছে। যাহা যে কোন সময় ঝড়ে বা অন্য কোন কারনে ভেঙ্গে পরে তার ঘর বাড়ী তছনছ করে দিতে পারে এবং যান মালের ক্ষতি হতে পারে। গাছ ও জমির পাশ্ববর্তি মালিক আল্বহাজ্ব মিজানুর রহামান তুহিনকে দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে গাছটি কর্তন করার জন্য বারবার বলা সত্বেও সে কর্ণপাত করেনি। সে অন্য লোকের সাথে মামলার কথা বলে সময় অতিবহীত করতেছে বলে জানা যায়। ইতি পূর্বে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও গণ্যমান্য ব্যাক্তির কাছে নালিশ করেও বাড়ির মালিক কোন ফল পায় নাই।  শাহারিয়ার কবির তার যান মাল রক্ষার্থে  গাছটি জরুরি ভাবে কর্তন করার আবেদন জানিয়েছে স্থানীয় পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে। গাছটি জরুরি ভিত্তিতে কর্তন না করলে যে কোন মুহুত্তে ভেঙ্গে যান ও মালের বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারে বলে স্থানীয়রা আসঙ্খা করছে।

এ ব্যাপারে গাছ ও জমির মালিকের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন যে, জমির উপরে মামলা আছে এবং স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাই আমি গাছ কাটার অনুমতি দিতে পারি না। গাছের অন্য মালিক সগির আহম্মেদ বুলুর সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন যে, আমি গাছটি ডাল-পালা কাটার জন্য পল্লবকে বহুবার বলেছি কিন্তু সে আমার কথায় কান দেয়নি।