Tuesday , 29 September 2020
Home » দৈনিক সকালবেলা » পাচঁফোড়ন » একটি পয়সাও ‘অহেতুক খরচ’ না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

একটি পয়সাও ‘অহেতুক খরচ’ না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

অনলাইন ডেস্ক:
বিভিন্ন মন্ত্রণালয়কে একটি পয়সাও ‘অহেতুক খরচ’ না করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। করোনার কারণে সরকারের ব্যয় বাড়লেও কমে গেছে রাজস্ব আদায়। তিনি বলেছেন, উন্নয়ন প্রকল্পে ব্যয় নির্ধারণে সবাইকে আরো সাশ্রয়ী হতে হবে।
সিটি করপোরেশনকে নিজের খরচে চলার নির্দেশ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেছেন, কেন্দ্র থেকে টাকা দেওয়া যাবে না। সিটি করপোরেশন নাগরিকদের সেবা দেয়। তাই তাদের নিজের অর্থায়নেই চলতে হবে। সরকারের দিকে তাকিয়ে না থেকে নিজেদের পায়ে দাঁড়ানোর জন্য সিটি করপোরেশন ও স্থানীয় সরকারসংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।
গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) ভার্চুয়াল সভায় প্রধানমন্ত্রী এসব নির্দেশ দেন। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে শেরেবাংলানগরে এনইসি সভাকক্ষে সভায় যুক্ত হন একনেক চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী।
একনেক সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে সভার বিস্তারিত তুলে ধরেন। তিনি জানান, সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সরকারি ব্যয় কমাতে এরই মধ্যে প্রকল্পের আওতায় নতুন গাড়ি কেনা স্থগিত করা হয়েছে। আরো অনেক খাত আছে, যেখান থেকে টাকা সাশ্রয় করা যেতে পারে।
প্রধানমন্ত্রীর উদ্ধৃতি দিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণ, বিমানভাড়া, হোটেলে থাকা-খাওয়ায় অনেক টাকা খরচ হয়। এই খাতে টাকা সাশ্রয় করার কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। কোনো একটি সভা-সেমিনার করতে গেলে সেখানে খাতা-কলম, পোল্ডার দেওয়া হয়। মন্ত্রণালয়ে চা-চিনি বাবদ টাকা খরচ হয়। এসব জায়গা থেকে টাকা বাঁচানোর কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। সরকারি কর্মকর্তাদের বিভিন্ন সভা-সেমিনারে গেলে সম্মানী দেওয়া হয়; জ্বালানি খরচও কম নয়। এসব খাত থেকেও টাকা সাশ্রয় করা যেতে পারে। কৃচ্ছ  সাধন করতে এরই মধ্যে উপসচিবদের গাড়ি কেনা সুবিধা স্থগিত করা হয়েছে। সব মিলিয়ে বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দার কারণে সরকারের ব্যয় কমাতে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন।
সভায় জনপ্রতিনিধিদের অনুরোধে যত্রতত্র সেতু নির্মাণের কথাটিও উঠে আসে। এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রত্যেকে নিজেদের বাড়ির সামনে সেতুর স্বপ্ন দেখেন। এটা ঠিক নয়। দেশে এমনিতেই প্রচুর সেতু হয়েছে। নতুন সেতু নির্মাণে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। পাহাড়ের প্রতিটি ঘরে বিদ্যুতের ব্যবস্থা নিশ্চিত করার কথা বলে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, যেখানে পল্লী বিদ্যুতায়নের লাইন দেওয়া সম্ভব সেখানে লাইন দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। যেখানে লাইন দেওয়া সম্ভব নয়, সেখানে সৌরবিদ্যুতের ব্যবস্থা করতে হবে। সব মিলিয়ে পার্বত্য জেলায় প্রতিটি ঘরেই বিদ্যুতের ব্যবস্থা নিশ্চিত করার তাগিদ দেন শেখ হাসিনা।
একনেক সভায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নতুনভাবে অন্তর্ভুক্ত ১৮টি ওয়ার্ডের সড়ক অবকাঠামো, খাল, নর্দমা ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়নে একটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে একনেক। উত্তর সিটি করেপারেশনের জন্য এটি এযাবৎকালে সবচেয়ে বড় প্রকল্প। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে খরচ হবে চার হাজার ২৫ কোটি টাকা। পুরো টাকাই রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে জোগান দেওয়া হবে।
পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, গতকাল একনেক সভায় ১০ হাজার ১০২ কোটি টাকা ব্যয়ে মোট আটটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে, যার পুরো টাকাই রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে জোগান দেওয়া হবে। এর মধ্যে ভূমি ব্যবস্থাপনার আধুনিকায়নে দুই হাজার ৪০৯ কোটি টাকা ব্যয়ে দুটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে একটি হলো এক হাজার ১৯৭ কোটি তিন লাখ টাকা ব্যয়ে ভূমি ব্যবস্থাপনা অটোমেশন প্রকল্প, আরেকটি হলো এক হাজার ২১২ কোটি টাকা ব্যয়ে ডিজিটাল পদ্ধতিতে ভূমি জরিপ করার জন্য ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরের ডিজিটাল জরিপ পরিচালনার সক্ষমতা বৃদ্ধিকরণ প্রকল্প।

About Sakal Bela

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!