Sunday , 20 June 2021
ব্রেকিং নিউজ
Home » ধর্ম » কারবালায় যাঁরা শহীদ হয়েছিলেন
কারবালায় যাঁরা শহীদ হয়েছিলেন

কারবালায় যাঁরা শহীদ হয়েছিলেন

অনলাইন ডেস্কঃ

আশুরা বা ১০ মহররমে ইরাকের কারবালায় শহীদ হন রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর দৌহিত্র হুসাইন ইবনে আলী (রা.)। তাঁর শাহাদাত ইসলামের ইতিহাসের অন্যতম হৃদয়বিদারক ঘটনা, যা যুগ-যুগান্তরে মুমিনের হৃদয়ে একই সঙ্গে ব্যথার সমীরণ ও সত্যের পথে সংগ্রামের অনুপ্রেরণা হিসেবে চিরস্মরণীয়। হুসাইন ইবনে আলী (রা.)-এর শাহাদাত ছাড়াও ১০ মহররমে পৃথিবীর আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাও ঘটেছে। তবে এসব ঘটনার ধারাবাহিকতা ও পারস্পরিক সম্পর্কের ঐতিহাসিক কোনো প্রমাণ পাওয়া যায় না।

কারবালা প্রান্তরে আরো যাঁরা শহীদ হয়েছিলেন

কারবালার প্রান্তরে আলী (রা.)-এর সন্তানদের মধ্যে আবু বকর, মুহাম্মাদ, উসমান, জাফর ও আব্বাস; হুসাইন (রা.)-এর সন্তানদের মধ্যে আবু বকর, ওমর, উসমান, আলী আকবার ও আবদুল্লাহ; হাসান (রা.)-এর সন্তানদের মধ্যে আবু বকর, ওমর, আবদুল্লাহ ও কাসেম; আকিলের সন্তানদের মধ্যে জাফর, আবদুর রহমান ও আবদুল্লাহ ইবন মুসলিম ইবন আকিল; আবদুল্লাহ ইবন জাফরের সন্তানদের মধ্যে আউন ও আবদুল্লাহ শহীদ হন।

কারবালার ঘটনায় করণীয়

আল্লামা ইবনে কাসির (রহ.) বলেন, প্রতিটি মুসলিমের উচিত রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর দৌহিত্র সাইয়েদ হুসাইন ইবন আলী (রা.)-এর কারবালার প্রান্তরে শহীদ হওয়ার ঘটনায় ব্যথিত হওয়া ও সমবেদনা প্রকাশ করা। তিনি ছিলেন মুসলিম জাতির নেতা ও ইমামদের অন্যতম। রাসুল (সা.)-এর সর্বশ্রেষ্ঠ কন্যা ফাতেমার পুত্র হুসাইন (রা.) একজন বিজ্ঞ সাহাবি ছিলেন। হাসান ও হুসাইনের মর্যাদা রাসুল (সা.) থেকে একাধিক সহিহ হাদিসে বর্ণিত হয়েছে। অন্তর দিয়ে তাঁদের ভালোবাসা ঈমানের অন্যতম আলামত এবং নবী পরিবারের কোনো সদস্যকে ঘৃণা করা ও গালি দেওয়া মুনাফেকির সুস্পষ্ট লক্ষণ। যাদের অন্তর ব্যাধিগ্রস্ত কেবল তারাই হুসাইন (রা.) বা নবী পরিবারের পবিত্র সদস্যদের ঘৃণা করতে পারে।

তথ্যঋণ : মাজা হাদাসা ফি কারবালা ওয়া মানিল্লাজি কাতালাল হুসাইন (রা.)

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*