Wednesday , 23 June 2021
ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » বিভাগীয় সংবাদ » দেশগ্রাম » সরকারি কোয়ার্টার এখন মাদকসেবীদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল
সরকারি কোয়ার্টার এখন মাদকসেবীদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল
--সংগৃহীত ছবি

সরকারি কোয়ার্টার এখন মাদকসেবীদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল

অনলাইন ডেস্কঃ

ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলায় পূর্ব পাকিস্তান আমলে প্রতিটি ইউনিয়ন পর্যায়ে নির্মিত হয় বিএস কোয়ার্টার। দীর্ঘদিন ইউনিয়ন পর্যায়ের কৃষি বিভাগের উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তাদের (ব্লক সুপারভাইজার) এই্ বিএস কোয়ার্টারগুলো সংস্কার হয়নি। সে কারণে ভবনগুলো এখন বসবাসের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। আর এই সুযোগে মাদকসেবীদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল হয়ে উঠেছে এই কোয়ার্টারগুলো। 

এদিকে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তারা ভবনগুলো জরাজীর্ণ থাকায় এখন আর ব্যবহার করছে না। ফলে তৃণমূলের কৃষকেরাও সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট কৃষি বিভাগের রক্ষণাবেক্ষণের অভাব ও কোয়ার্টারগুলো অব্যবহৃত অবস্থায় ফেলে রাখার ফলে এই সরকারি সম্পদ এখন বেহাল হতে চলেছে। সেই সাথে পরিত্যাক্ত থাকার সুযোগ নিয়ে কয়েকটি ভবনে মাদক সেবীদের আনাগোনা করতেও দেখা যায়। বর্তমানে তিনটি কোয়ার্টার নিয়ে আদালতে মামলা চলমান রয়েছে। হালুয়াঘাট উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের সবগুলোতেই আট থেকে ১২ শতক জায়গায় রয়েছে এই কোয়ার্টারগুলো । এর মধ্যে ধারা, আমতৈল ও হালুয়াঘাট সদর ইউনিয়নের কোয়ার্টারগুলো উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ নিজেরাই সংস্কার করে ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছেন। বাকি ৯টি ইউনিয়নের কোয়ার্টারগুলো সংস্কারের অভাবে জরাজীর্ণ অবস্থায় ব্যবহারের অনুপযোগি হয়ে আছে।

উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্যমতে, ১৯৬০-৬১ অর্থবছরে তৎকালীন পাকিস্তান সরকারের আমলে কোয়ার্টারগুলো সিড গোডাউন বা বীজাগার হিসেবে নির্মাণ করা হয়। আশির দশকে এগুলোকে সংস্কার করে ইউনিয়ন পর্যায়ে কর্মরত ব্লক সুপারভাইজার (বর্তমানে উপসহকারী কর্মকর্তা) বসবাস ও অফিস হিসেবে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু ভবনগুলো সংস্কারের কিছুদিন পরেই তা আবারো ব্যবহারের অনুপযোগি হয়ে পড়লে সেখান থেকে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ চলে যায়।

উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের সংগঠন (ডিকেআইবি) ময়মনসিংহ জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মো. রুবেল করিম বলেন, আমাদের সবগুলো ইউনিয়নেই কোয়ার্টার রয়েছে। এগুলো এখন আর সংস্কারের পর্যায়ে নেই। ফলে আমাদের উপজেলা পর্যায়ে ভাড়া বাসায় থেকে কৃষকদের সেবা দিতে হয়। সরকার যদি পুরোনো ভবনগুলো ভেঙে নতুন ভবন নির্মাণ করে তাহলে আমরা তৃণমূলে থেকেই কৃষকদের সেবা দিতে পারবো।

এ বিষয়ে হালুয়াঘাট উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান বলেন, এই কোয়ার্টারগুলো নির্মাণের পর থেকে সংস্কার করা হয়নি। আমরা নতুন ভবন ও সীমানা প্রাচীর নির্মাণের জন্য কৃষি বিভাগে তথ্য পাঠিয়েছি।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*