Tuesday , 22 June 2021
ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » বিভাগীয় সংবাদ » জেলার-খবর » রিফাত হত্যার ১৫ মাস পর মামলার প্রাপ্তবয়স্ক্ ১০ আসামির রায় ৩০ সেপ্টেম্বর বুধবার
রিফাত হত্যার ১৫ মাস পর মামলার প্রাপ্তবয়স্ক্ ১০ আসামির রায় ৩০ সেপ্টেম্বর বুধবার

রিফাত হত্যার ১৫ মাস পর মামলার প্রাপ্তবয়স্ক্ ১০ আসামির রায় ৩০ সেপ্টেম্বর বুধবার

বরগুনা প্রতিনিধি: বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যার প্রায় ১৫ মাস পর মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির রায় হবে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর বুধবার। জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো.আছাদুজ্জামান বুধবার এই তারিখ ঘোষনা করেছেন। গত বছরের ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে প্রকাশ্যে নয়ন ও তার সহযোগী সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে রিফাত শরীফকে গুরুতর আহত করে। গুরুতর আহত রিফাত বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওই দিনই মারা যান। আলোচিত এই হত্যা মামলায় প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির পক্ষে-বিপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হওয়ার পর বিচারক রায়ের দিন ধার্য করেন।
অন্যদিকে এই মামলায় সাক্ষী থেকে আসামি হওয়া নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী মিন্নির জামিন জেলা ও দায়রা জজ আদালত বহাল রেখেছেন।
রাষ্ট্র পক্ষের পিপি এ্যাড ভূবন চন্দ্র হালদার জানান, আসামি পক্ষের আইনজীবীদের যুক্তি খন্ডন করার নির্ধারিত তারিখে আমরা আদালতে বক্তব্যে রেখেছি। মামলায় অভিযুক্ত কোন আসামি নির্দোষ নয় এটা প্রমান করতে সক্ষম হয়েছি। মহামান্য হাইকোর্টের আদেশে মামলার অন্যতম আসামি নিহত রিফাতের স্ত্রী জামিনে থাকায় তার নিয়োজিত আইনজীবীর জিম্মায় মিন্নির জামিন জেলা ও দায়রা জজ আদালত বহাল রেখেছেন। রিফাত শরীফ হত্যা মামলার রায়ের তারিখ ঘোষনার সময় জামিনে থাকা রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি সহ কারাগারে থাকা ৮ আসামি সহ ৯ আসামি আদালতে স্ব-শরীরে উপ¯িহত ছিলেন। মামলার অপর আসামী মুসাকে পলাতক দেখানো হয়েছে।
মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোর সাংবাদিকদের বলেন,আমার মেয়ে তার স্বামীকে রক্ষার জন্য চেস্টা করেছেন, পরবর্তীতে রিক্সায় করে হাসপাতালে নিয়ে গেছেন তা আইনজীবীরা বিজ্ঞ আদালতে সঠিক ভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছেন।
অপরদিকে মিন্নির আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম বলেন, আমার মক্কেল যে তার স্বামীকে বাঁচানোর জন্য চেষ্টা করেছেন। তদন্তকারি কর্মকর্তা আমার আসামির বিরুদ্বে কাল্পনিক মনগড়া যে অভিযোগ এনেছেন, আমরা আদালতে সঠিক ভাবে বিষয়টি উপ¯হাপন করতে সক্ষম হয়েছি।
রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় গত ১ জানুয়ারি চার্জগঠন করা হয়। ৮ জানুয়ারি সাক্ষ্য গ্রহন শুরু হয়ে ৭৬ জনের সাক্ষ্য গ্রহন করা হয়েছে। এ দিকে ৬ সেপ্ট¤া^র রোববার মিন্নির যুক্তিতর্কের মাধ্যমে যুক্তিতর্ক শেষ হয়। মিন্নিকে র্নিদোষ প্রমাণের যুক্তি তুলে ধরতে ঢাকা থেকে বরগুনা আসেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি ফারুক হোসেন।
্ঔই বছরের ১ সেপ্টেম্বর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী মিন্নিসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দুই ভাগে(প্রাপ্ত-অ প্রাপ্ত বয়স্ক) বিভক্ত অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করে পুলিশ। একই সঙ্গে রিফাত শরীফ হত্যা মামলার ১ নম্বর আসামি নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ায় তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়।
রিফাত হত্যা মামলায় প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামিরা হলেন-রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজী, আল-কাইউম ওরফ্ েরাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হ্রদয় ওরফে টিকটক হ্রদয় ,মো. হাসান, মো. মুসা, আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মো. সাগর ও কামরুল ইসলাম সাইমুন।
গত ১ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালত। অন্যদিকে গত ৮ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার অ-প্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন বরগুনার শিশু আদালত। এ মামলার চার্জশিটভুক্ত প্রাপ্তবয়স্ক আসামি মো. মুসা এখনো পলাতক রয়েছেন।
এছাড়াও নিহত রিফাতের স্ত্রী মিন্নিসহ অ-প্রাপ্ত বয়স্ক ৮ আসামি উচ্চ আদালত এবং বরগুনা শিশু আদালতের আদেশে জামিনে রয়েছে।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*