Friday , 23 October 2020
E- mail: news@dainiksakalbela.com/ sakalbela1997@gmail.com
Home » জাতীয় » মানবাধিকার নিশ্চিত করতে জাতি ও বিশ্বের কাছে অঙ্গীকার ব্যক্ত প্রধানমন্ত্রীর
মানবাধিকার নিশ্চিত করতে জাতি ও বিশ্বের কাছে অঙ্গীকার ব্যক্ত  প্রধানমন্ত্রীর

মানবাধিকার নিশ্চিত করতে জাতি ও বিশ্বের কাছে অঙ্গীকার ব্যক্ত প্রধানমন্ত্রীর

অনলাইন ডেস্কঃ

জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীতে (মুজিববর্ষ) সবার জন্য মানবাধিকার নিশ্চিত করতে জাতি ও বিশ্বের কাছে দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি গতকাল শনিবার রাত সোয়া ৮টায় জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৫তম অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে ওই অঙ্গীকার করেন। প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে কভিড-১৯ মহামারি মোকাবেলায় বাংলাদেশের উদ্যোগগুলো তুলে ধরেন। সবার জন্য কভিড ভ্যাকসিন নিশ্চিত করার তাগিদ দেন প্রধানমন্ত্রী। সেই সঙ্গে তিনি বাংলাদেশের ভ্যাকসিন উৎপাদনের সক্ষমতার কথাও জানান।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে মিয়ানমারের ১১ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে আশ্রয় দেওয়ার কথা তুলে ধরেন। রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের আরো ভূমিকা প্রত্যাশা করে তিনি বলেন, তিন বছরের বেশি সময় অতিক্রান্ত হলেও এখন পর্যন্ত মিয়ানমার একজন রোহিঙ্গাকেও ফেরত নেয়নি। রোহিঙ্গা সংকট মিয়ানমার সৃষ্টি করেছে। আর সমাধানও মিয়ানমারকেই করতে হবে।

১৯৭১ সালে পাকিস্তানি বাহিনীর গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধের ইঙ্গিত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মানবতাবিরোধী অপরাধ ও গণহত্যার শিকার হওয়ার অভিজ্ঞতা থেকেই বাংলাদেশ নিপীড়িত ফিলিস্তিনিদের ন্যায্য দাবির প্রতি সমর্থন জানিয়ে আসছে।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণ ছিল ১৭তম ভাষণ। কভিড মহামারির কারণে এবার ভার্চুয়ালি আগে থেকে রেকর্ড করা ভাষণ প্রচার করা হয় জাতিসংঘে। প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ জাতিসংঘে উপস্থাপন করেন নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাবাব ফাতিমা।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে বলেন, ‘কভিড-১৯ মহামারির কারণে আমরা মানব ইতিহাসের এক অভাবনীয় দুঃসময় অতিক্রম করছি। জাতিসংঘের ইতিহাসেও এই প্রথমবারের মতো নিউ ইয়র্কের সদর দপ্তরে সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানদের অনুপস্থিতিতে ডিজিটাল পদ্ধতিতে সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘জাতিসংঘের এই সভাকক্ষটি আমার জন্য অত্যন্ত আবেগের। ১৯৭৪ সালে এই কক্ষে দাঁড়িয়ে আমার পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি সদ্য স্বাধীন দেশের সরকারপ্রধান হিসেবে মাতৃভাষা বাংলায় প্রথম ভাষণ দিয়েছিলেন। আমিও এই কক্ষে এর আগে ১৬ বার সশরীরে উপস্থিত হয়ে বিশ্বশান্তি ও সৌহার্দের ডাক দিয়েছি। সরকারপ্রধান হিসেবে জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে এটি আমার ১৭তম বক্তৃতা।’

প্রধানমন্ত্রী ক্ষতিগ্রস্ত দেশ ও জনগোষ্ঠীকে সুরক্ষা দেওয়া স্বাস্থ্যকর্মীসহ সব পর্যায়ের জনসেবকদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এই দুর্যোগকালে বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও বহুপক্ষীয় উদ্যোগের জন্য তিনি জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসকে ধন্যবাদ জানান। জাতিসংঘ মহাসচিবের যুদ্ধবিরতিসহ অন্যান্য উদ্যোগের প্রতি তিনি বাংলাদেশের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, ‘কভিড-১৯ মহামারির কারণে বিদ্যমান বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জগুলো আরো প্রকট হয়েছে। এই মহামারি আমাদের উপলব্ধি করতে বাধ্য করেছে যে এই সংকট উত্তরণে বহুপাক্ষিকতাবাদের বিকল্প নেই।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘জাতিসংঘের ৭৫তম বছরপূর্তিতে জাতিসংঘ সনদে অন্তর্নিহিত বহুপাক্ষিকতাবাদের প্রতি আমাদের অগাধ আস্থা রয়েছে। জাতীয় পর্যায়ে বহু প্রতিকূলতার মধ্যেও বহুপাক্ষিকতাবাদের আদর্শ সমুন্নত রাখতে আমরা বদ্ধপরিকর।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আমাদের জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছি। দারিদ্র্য ও শোষণমুক্ত সে সোনার বাংলাদেশ হবে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের ওপর প্রতিষ্ঠিত—যেখানে সবার মানবাধিকার নিশ্চিত হবে। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীতে জাতি ও বিশ্বের নিকট এটিই আমাদের দৃঢ় অঙ্গীকার।’

প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। তিনি বলেন, “বঙ্গবন্ধু শোষণ, বঞ্চনা ও নিপীড়নের অবসান ঘটিয়ে বাঙালি জাতিকে পৃথিবীর বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে শিখিয়েছেন। তাঁরই দেখানো পথে হেঁটে আমরা আজ বাংলাদেশকে একটি মর্যাদাশীল আসনে নিয়ে আসতে পেরেছি। এই মহান পরিষদে দাঁড়িয়ে তিনি বলেছিলেন, ‘জাতিসংঘ সনদে যে মহান আদর্শের কথা বলা হয়েছে, তা আমাদের জনগণের আদর্শ এবং এই আদর্শের জন্য তারা চরম ত্যাগ স্বীকার করেছে। এমন এক বিশ্বব্যবস্থা গঠনে বাঙালি জাতি উৎসর্গকৃত, যে ব্যবস্থায় সকল মানুষের শান্তি ও ন্যায়বিচার লাভের আকাঙ্ক্ষা প্রতিফলিত হবে।’ তাঁর এই দৃপ্ত ঘোষণা ছিল মূলত বহুপাক্ষিকতাবাদেরই বহিঃপ্রকাশ। ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘে তাঁর প্রদত্ত দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য বর্তমান সংকট মোকাবেলার জন্য আজও সমানভাবে প্রাসঙ্গিক।”

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাঙালি জাতির জন্য এ বছরটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। এ বছর আমরা আমাদের জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপন করছি। বঙ্গবন্ধুর জীবন, সংগ্রাম, আত্মত্যাগ এবং সাফল্য আমাদের কভিড-১৯-এর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় যেমন সাহস জোগায়, তেমনি সংকটের উত্তরণ ঘটিয়ে নতুন দিনের আশার সঞ্চার করে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে সকল বঞ্চিত ও উন্নয়নকামী দেশ ও মানুষের পক্ষ হতে তাঁকে শ্রদ্ধা নিবেদন করছি।’

শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা ও শরণার্থী হিসেবে নিজের ছয় বছর বিদেশে থাকতে বাধ্য হওয়ার বিষয়টি জাতিসংঘে তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘আমি জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে এই প্রসঙ্গটি উত্থাপন করছি এ জন্য যে পৃথিবীর ইতিহাসে এ রকম জঘন্য, নির্মম ও বেআইনি হত্যাকাণ্ড যেন আর না ঘটে।’

জীবন ও অর্থনীতিতে কভিডের প্রভাব বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে বলেন, ‘কভিড-১৯ প্রমাণ করেছে, আমাদের সবার ভাগ্য একই সূত্রে গাঁথা। আমরা কেউই সুরক্ষিত নই, যতক্ষণ পর্যন্ত না আমরা সকলের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে পারছি। এই ভাইরাস আমাদের অনেকটাই ঘরবন্দি করে ফেলেছিল। যার ফলে স্বাস্থ্যব্যবস্থার পাশাপাশি অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড ও মারাত্মকভাবে ব্যাহত হয়েছে। বাংলাদেশে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৮.২ শতাংশ হারে জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন সম্ভব হয়েছিল। কিন্তু কভিড-১৯ আমাদের এই অগ্রযাত্রা বাধাগ্রস্ত করেছে।’

প্রধানমন্ত্রী কভিডের প্রভাব মোকাবেলায় তাঁর সরকারের নেওয়া উদ্যোগগুলো তুলে ধরে বলেন, “বাংলাদেশে আমরা প্রথম থেকেই ‘জীবন ও জীবিকা’ দুই ক্ষেত্রেই সমানভাবে গুরুত্ব দিয়ে কার্যক্রম শুরু করেছিলাম। দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য, উৎপাদন যাতে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন না হয়, তার জন্য বিভিন্ন প্রণোদনার ব্যবস্থা করেছি। আমরা সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির পরিধি ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি করেছি।”

কভিড-১৯ বিস্তারের কারণে কর্মহীন মানুষের জন্য তাত্ক্ষণিকভাবে সরকারের খাদ্য ও অন্যান্য সহায়তায় এক কোটিরও বেশি পরিবার উপকৃত হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি ৪০ লাখ শিক্ষার্থীকে শিক্ষা বৃত্তি, করোনাকালে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক, শ্রমিক ও দিনমজুরসহ ৫০ লাখ মানুষকে নগদ অর্থ সহায়তা দেওয়ার কথাও উল্লেখ করেন। সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে গ্রামপর্যায়ের প্রায় ১৮ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক ও ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্র থেকে বিনা মূল্যে ৩০ ধরনের ওষুধ দেওয়ার কথাও তিনি জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকারি সহায়তার পাশাপাশি তিনি নিজে উদ্যোগী হয়ে তহবিল সংগ্রহ করে এতিম ও গরিব শিক্ষার্থী, মাদরাসা, মসজিদ, মন্দির, স্কুল শিক্ষক, শিল্পী, সাংবাদিকসহ সাধারণভাবে সরকারি সহায়তার আওতাভুক্ত নয়, এমন ব্যক্তিদের মধ্যে আড়াই হাজার কোটি টাকার বেশি বিতরণ করেছি। আর্থিক খাতের আশু সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে এ যাবৎ এক হাজার ৩২৫ কোটি মার্কিন ডলার সমপরিমাণ প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণার কথা জানান তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা করোনাকালে খাদ্য উৎপাদনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছি। সেই সঙ্গে পুষ্টি নিশ্চয়তার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে দেশের শিল্প-কারখানা সচল রাখা এবং কৃষি ও শিল্পপণ্য যথাযথভাবে বাজারজাতকরণের বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছি। যার ফলে বাংলাদেশের স্ব্যাস্থ্য ও অর্থনীতি এখনো তুলনামূলকভাবে অনেক ভালো আছে। ’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘কভিড-১৯-এর কারণে বিশ্বব্যাপী উৎপাদনে স্থবিরতা সত্ত্বেও আমাদের ৫.২৪ শতাংশ হারে জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। আগামী অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার ৭ শতাংশে উন্নীত হবে বলে আমরা আশাবাদী।’

কভিড ভ্যাকসিন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে বলেন, ‘আশা করা হচ্ছে, বিশ্ব শিগগিরই কভিড-১৯-এর ভ্যাকসিন পাবে। এই ভ্যাকসিনকে বৈশ্বিক সম্পদ হিসেবে বিবেচনা করা প্রয়োজন। সব দেশ যাতে এই ভ্যাকসিন সময়মতো এবং একই সঙ্গে পায় তা নিশ্চিত করতে হবে। কারিগরি জ্ঞান ও মেধাস্বত্ব প্রদান করা হলে এই ভ্যাকসিন বিপুল পরিমাণে উৎপাদনের সক্ষমতা বাংলাদেশের রয়েছে।’

প্রবাসী শ্রমিকদের অনেকের কাজ হারানো এবং অনেককে দেশে পাঠিয়ে দেওয়ার কথা জাতিসংঘে তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা দেশে ফিরে আসা অভিবাসী শ্রমিকদের প্রণোদনা বাবদ ৩৬ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার বরাদ্দ দিয়েছি। তবে কভিড-পরবর্তী সময়ে তাঁদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমি অভিবাসী শ্রমিকদের বিষয়টি সহমর্মিতার সঙ্গে ও ন্যায়সংগতভাবে বিবেচনা করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও অভিবাসী গ্রহণকারী দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।’

প্রধানমন্ত্রী জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলা, লিঙ্গবৈষম্য দূরীকরণ ও শিশুদের উন্নয়নে সরকারের উদ্যোগগুলো তুলে ধরেন। ‘সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়’—পররাষ্ট্রনীতির এই মূলমন্ত্রে উদ্বুদ্ধ হয়ে বাংলাদেশ শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষা এবং শান্তির সংস্কৃতি বিনির্মাণে নিয়মিত অবদান রেখে চলেছে বলে তিনি জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মহামারিকালে অসহিষ্ণুতা, ঘৃণা, বিদ্বেষ ও উগ্র জাতীয়তাবাদের মতো বিষয়গুলো বৃদ্ধি পাচ্ছে। শান্তির সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে আমরা এ বিষয়গুলোর মোকাবেলা করতে পারি।’ সংঘাতপ্রবণ দেশগুলোতে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও শান্তি বজায় রাখতে বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন জানিয়ে তিনি বলেন, তাঁদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অন্যতম দায়িত্ব।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*