Wednesday , 21 April 2021
Home » দৈনিক সকালবেলা » বিভাগীয় সংবাদ » জেলার-খবর » অপহরণ মামলায় ৭১ টেলিভিশনের বরগুনা প্রতিনিধি ইমরানসহ ১ আসামী অধরা
অপহরণ মামলায় ৭১ টেলিভিশনের বরগুনা প্রতিনিধি ইমরানসহ ১ আসামী অধরা

অপহরণ মামলায় ৭১ টেলিভিশনের বরগুনা প্রতিনিধি ইমরানসহ ১ আসামী অধরা

বরগুনায় অপহরণ মামলার অন্যতম ২ আসামী এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে

বরগুনা প্রতিনিধি: বরগুনায় অপহরণ মামলার অন্যতম ২ আসামী একাত্তর টেলিভিশনের বরগুনা প্রতিনিধি ইমরান হোসেন টিটু ও গ্রাফিক্স ডিজাইনার শুভ সেন এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে। এ ঘটনায় বরগুনা সদর থানা পুলিশ ও পটুয়াখালীর মহিপুর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে মামলার ১ নম্বর আসামি সময় টিভির প্রতিনিধি স্টাফ রিপোর্টার (বরগুনা) মো. আব্দুল আজিমকে পটুয়াখালীর কুয়াকাটার গোল্ডেন ইন নামের একটি আবাসিক হোটেল থেকে গ্রেফতার করে। অপহরণের ৮দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ এ মামলার অন্যতম ২ আসামীদের গ্রেফতার করতে পারেনি। ধর্ষন ও নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে সারাদেশ যখন ক্ষোভে উত্তাল ঠিক তখনই এ অপহরণকারীদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবীতে বরগুনায় সময় টিভির প্রতিনিধি স্টাফ রিপোর্টার (বরগুনা) মো. আব্দুল আজিম ও সময় টিভির প্রধান বার্তা সম্পাদক মুজতবা দানিশ এর কুশপত্তলিকা দাহ করা হয় ।
সাধারণ মানুষ ও সুশিল সমাজ কানাঘুষা করছে ,একজন মফস্বল সাংবাদিক হয়ে কিভাবে বিলাসী জীবনযাপন করছে । তাদের অর্থের উৎস কি? কিভাবে এতো অঢেল সম্পদের মালিক হলেন সেটা দুদক ও প্রশাসন খোঁজ নিয়ে দেখলে থলের বেড়াল বেড়িয়ে আসবে। সাংস্কৃতিক সংগঠন করে বিভিন্ন বয়সী মেয়েদের তার ফাঁদে ফেলে তাদের ব্লাকমেইল করতো। এটা কোনভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। এদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হলে তারা সমাজে অপহরণ ও ধর্ষনের মত মারাতœক অপরাধ ঘটাবে। তাই শিশু অপহরণ মামলায় আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান ।
এছাড়াও এসব সাংবাদিকদের শিক্ষগত যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে সমাজের সুশিল ব্যক্তিরা। তারা মনে করে অ-শিক্ষিত ও অল্প-শিক্ষিত এবং আন্ডার মেট্টিকদের এসব প্রতিষ্ঠিত মিডিয়ায় নিয়োগ দেয়া হলে সেসব মিডিয়ার সন্মান ক্ষুন্ন হবে।তাই সাংবাদিকতার মত মহৎ পেশায় নিয়োগের বেলায় অন্তত শিক্ষাগত যোগ্যতা যাচাই করে নিয়োগের দাবী জানান তারা।
এ দিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এ ঘটনায় সমালোচনার ঝড় ওঠে। এ ধরনের অপরাধী সাংবাদিক নামদারীদের মোবাইল, ল্যাপটপ ও অফিস-বাসায় তল্লাশি চালালে আরো অনেক চাঞ্চল্যকর তথ্য বেড়িয়ে আসতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে। তাই প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামন করেছেন ফেসবুক ব্যবহার কারীরা।
এক ভূক্তভোগীর স্বজন সাইদুর রহমান নামে একজন প্রতিবেদকে জানান, ্প্রায় ৫ মাস পূর্বে সময় টিভির (বরগুনা) স্টাফ রিপোর্টার আব্দুল আজিমের কু-কর্মের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল করেন আমার শ্যালক নুর হোসেন ইমাম। কিন্তু দু:খের বিষয় আইন শৃংঙ্খলা বাহিনী (পুলিশ) ভাইরাল ভিডিও তদন্ত না করে ইল্টো সময় টিভির (বরগুনা) স্টাফ রিপোর্টার আব্দুল আজিম এর ক্ষমতা দ্বারা প্রভাবিত হয়ে ভাইরাল মুছেফেলে নুর হোসেন ইমামকে মিথ্যা মামলা দিয়ে জেলে পাঠায়। বর্তমানে সে মিথ্যা মামলায় বরগুনা জেলে আছে। ভাইরাল ভিডিও তদন্ত করে প্রকৃত দোষীর শাস্তির দাবী জানাই।
এ ব্যাপারে বরগুনা থানার ওসি কে ,এম তারিকুল ইসলাম অপহরণ মামলায় ৭১ টেলিভিশনের বরগুনা প্রতিনিধি ইমরানসহ ১ আসামী পলাতকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
উল্লেখ্য, বরগুনা পৌর শহরের সনাতন ধর্মাবলম্বী এক বস্ত্র ব্যবসায়ীর নবম শ্রেণিতে পড়–য়া মেয়েকে জোরপূর্বক একটি সাদা প্রাইভেটকারে (গাড়ি নং-ঢাকা মেট্রো-গ ১৭-৮২৩৪) করে শনিবার (৩অক্টোবর)রাতে নিয়ে যায় সাংবাদিক আজিমসহ কতিপয় দুর্বৃত্তরা।এ সময় ২ নং সাক্ষি ডাকচিৎকার দিলে প্রাইভেটকারটি দ্রুত গতিতে বরগুনা টাউন হলের দিকে চলে যায়। এ ঘটনায় অপহরনের অভিযোগে তাৎক্ষনিক ঔ ছাত্রীর কাকা শুক্রবার রাতে বরগুনা সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০৩ (সংশোধিত) এর ৭/৩০ ধারায় তিন জনের নাম উল্লেখ ও ২/৩ জন অজ্ঞাতনামা আসামী করে মামলা দায়ের করেন। মামলায় সময় টেলিভিশনের বরগুনার স্টাফ রিপোর্টার মো. আবদুল আজীমকে ১ নম্বর আসামি এবং তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু গ্রাফিক্স ডিজাইনার শুভ সেন (২৬) ২নম্বর আসামি এবং একাত্তর টেলিভিশনের বরগুনা প্রতিনিধি ইমরান হোসেন টিটুকে (২৭) তিন নম্বর আসামি করা হয়। মামলা দায়েরের পর বরগুনা সদর থানা পুলিশ ও পটুয়াখালীর মহিপুর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে সাংবাদিক আজিমকে পটুয়াখালীর কুয়াকাটার গোল্ডেন ইন নামের একটি আবাসিক হোটেল থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় অপহৃত ছাত্রীকেও উদ্ধার করা হয়। পরে আদালতের মাধ্যমে আজিমকে জেল হাজতে পাঠানো হয়।এ ঘটনায় মামলার ২ নম্বর আসামী গ্রাফিক্স ডিজাইনার শুভ সেন ও একাত্তর টেলিভিশনের বরগুনা প্রতিনিধি ইমরান হোসেন এখনো পলাতক রয়েছে।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*