Thursday , 26 November 2020
E- mail: news@dainiksakalbela.com/ sakalbela1997@gmail.com
Home » অর্থনীতি » সরাইলের বাজারে আগুন, ৫০ টাকার নিচে নেই কোনো সবজি!
সরাইলের বাজারে আগুন, ৫০ টাকার নিচে নেই কোনো সবজি!

সরাইলের বাজারে আগুন, ৫০ টাকার নিচে নেই কোনো সবজি!

সরাইল প্রতিনিধি:
আজ বুধবার (৪ নভেম্বর ) দুপুরে সরাইল বিকেলে বাজারের সবজি ব্যবসায়ীরা বলছেন, চলতি মৌসুমে দফায় দফায় অতিবৃষ্টির কারণে এই অঞ্চলের চাষকৃত শীতকালীন আগাম সবজি বিনষ্ট হওয়ায় বাজার গুলোতে এখন জেলার বাইরে থেকে আসছে সবজি সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস।তাই এসব সবজির দাম আকাশ ছোঁয়া।এদিকে ক্রেতারা বলেন, শীত কালীন  আগাম সবজি উঠতে শুরু করলেও বেশি দামের সবজিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে নাভিশ্বাস উঠেছে সাধারণ মানুষেরএকদিকে করোনার প্রভাবে কর্মহীন মানুষ অন্যদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরাইল উপজেলার বাজারগুলোতে আকাশ ছোঁয়া সবজির দাম কাঁচা বাজারের লাগামহীন মূল্যে নিম্ন মধ্যম আয়ের মানুষের জীবন এখন বিপর্যস্ত। সবজি কেনা এখন দূরহ ব্যাপার।ভোক্তরা বলছেন, বাজারে প্রশাসনের সুনিদিষ্ট মনিটরিং না থাকায় আকাশ ছোঁয়া দামে সবজি বিক্রয় করছেন দোকানীরা। বাজার নিয়ন্ত্রণে নিয়মিত বাজার মনিটরিং এর দাবি জানান তারা।স্থানীয়রা বলছেন, অতিবৃষ্টির কারণে সবজির বাজারে মূল্য বৃদ্ধি পেতে পারে। কিন্তু গেল সপ্তাহ ধরে সবজির দাম লাগামহীন হয়ে পড়েছে। বর্তমানে প্রতিটি সবজি কেজি প্রতি দুই থেকে চারগুণ দামে কিনতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে।উপজেলার বিভিন্ন বাজারে সরেজমিনে দেখা যায়, কাঁচামরিচ ২০০ টাকা, পেঁয়াজ ৮০ থেকে ৯০ টাকা, বেগুন ৬০ টাকা, আলু ৫০ টাকা, ছোট করলা ১০০ টাকা, বড় করলা ১০৫ টাকা, মূলা ৪৫ টাকা, ঢেঁড়শ ৪৫ টাকা, কচু ৪০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ৪৫ টাকা, টমেটো ১০০ থেকে ১১০ টাকা, শসা ৫০ টাকা, ধনে পাতা ৩০০ টাকা, লতি ৪০ টাকা, ফুলকপি ১০০ টাকা, ধুন্ধল ৪০ টাকা, শিম ১২০ টাকা কেজিতে বিক্রয় হচ্ছে। চাল কুমড়া প্রতি পিস ২৫-৩০ টাকা, লাউ প্রতি পিস ৪০ থেকে ৫০ টাকা, কাঁচকলা প্রতি হালি ২০-২৫ টাকা, দেশি লেবু ২০ টাকা হালি করে বিক্রি হচ্ছে। আবার চালের দামও বেড়েছে প্রকারভেদে কেজি প্রতি তিন থেকে চার টাকা।সবজি বিক্রেতা শাকিব ও সুরুজ আলী জানান, এবার অতিবৃষ্টির কারণে অধিকাংশ সবজির আবাদ নষ্ট হয়ে যাওয়ায় জেলার বাইরে থেকে বেশি দামে সবজি কিনে আনতে হচ্ছে। তাই দাম একটু বেশি।সবজি কিনতে আসা নুরুল হুদা জানান, আগে এক কেজি কিনলে এখন কিনতে হচ্ছে এক পোয়া।দিলু নামের এক ক্রেতা জানান, নিম্ন এবং মধ্যম আয়ের মানুষের পক্ষে এখন সবজি কিনে খাওয়া স্বপ্নের ব্যাপার। সবজির বাজারে যাওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে।তাই ডিম ডালে দিন চলে যাচ্ছে।আর কাঁচামরিচ কিনে খাওয়ার কথা যেন চিন্তাই করা যায় না। সরাইল উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, এবার সরাইল উপজেলায় মৌসুমে ৮০০ ও শীতকালীন ৩০০ হেক্টর জমিতে আগাম শীতকালীন সবজির চাষ হয়েছিল। অতিবৃৃষ্টির কারণে সবজি নষ্ট হয়েছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন  কৃষক।সরাইল উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি ) ফারজানা প্রিয়াঙ্কা এ প্রতিনিধিকে বলেন,সবজিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের বাজার নিয়ন্ত্রণ রাখতে প্রশাসন  বাজার মনিটরিং করছে। যদি কোন ব্যবসায়ী অতিরিক্ত দামে বিক্রি করে তাদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করবে উপজেলা প্রশাসন।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*