Sunday , 18 April 2021
Home » দৈনিক সকালবেলা » বিভাগীয় সংবাদ » চট্টগ্রাম বিভাগ » দীর্ঘবছর ধরে ঈদগাঁওর উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি জরাজীর্ণ
দীর্ঘবছর ধরে ঈদগাঁওর উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি জরাজীর্ণ
--প্রেরিত ছবি

দীর্ঘবছর ধরে ঈদগাঁওর উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি জরাজীর্ণ

কক্সবাজার প্রতিনিধি:

কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে পরিত্যক্ত ও জরাজীর্ণ অবস্থায় রয়েছে। বিপাকে পড়েছেন গ্রামগঞ্জ থেকে আসা অসহায় রোগীরা।  
দেখা যায়, ঈদগাঁও বাজারস্থ জালালাবাদ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের পাশ্ববর্তী ঈদগাঁওর উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ভবনটি বর্তমানে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। ভবনের ভেতরে পঁচা পানিতে ভর পুর। যেন ভূতুুড়ে পরিবেশ। সংস্কার নেই।
তথ্য মতে, জালালাবাদ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে ঈদগাঁও উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এ উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের একজন মেডিকেল অফিসার,একজন উপ-সহকারী মেডিকেল অফিসার ও একজন অফিস সহায়ক রয়েছেন। ফামাসিষ্ট পদ শূন্য। জালালাবাদ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের মেডিকেল অফিসার সদরে প্রেষণে আছে। রয়েছেন একজন উপ-সহকারী মেডিকেল অফিসার এবং একজন পরিবার কল্যান পরিদর্শিকা। তবে অফিস সহায়ক ও ফার্মাসিষ্ট পদ শূন্য বলে জানা গেছে।
দীর্ঘবছর ধরে ঈদগাঁওর উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি পরিত্যক্ত থাকার ফলে ঐ কেন্দ্রের কর্মকতা-কর্মচারীরা পাশ্ববর্তী জালালাবাদ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। এই কেন্দ্র বৃহত্তর ঈদগাঁও ছাড়াও খুটাখালী,ঈদগড়,চৌফলদন্ডী ও ভারুয়াখালী থেকে আগত রোগীদের কারণে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত চাপ থাকে। ফলে এত বিপুল সংখ্যক রোগীদের সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে চিকিৎসকদের। 
ভিলেজ ডক্টর ফোরামের সহ সভাপতি রেহেনা আক্তার কাজল জানান, ঈদগাঁও উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র পরিত্যক্ত থাকায় ইউনিয়নের স্বাস্থ্য সেবা প্রত্যাশিদের বাধ্য হয়ে অপরাপর ক্লিনিক বা হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা সেবা নিতে হয়। এতে তাদের মূল্যবান সময়,অর্থের অপচয় হচ্ছে। যা কোনভাবে মেনে নেওয়া যায়না। তিনি একটি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার দাবী জানান। 
কেমিষ্ট এন্ড ড্রাগিষ্ট সমিতি,ঈদগাঁও শাখার সহ সাধারণ সম্পাদক জিল্লুল এহেচান বুলু জানান, এই পরিত্যক্ত উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি দীর্ঘ বছর ধরে জরাজীর্ণ অবস্থায় রয়েছে। সরকারী সম্পদ পানিতে নষ্ট হচ্ছে। পুরাতন কেন্দ্রটি ভেঙ্গে নতুন হাসপাতাল নির্মাণের দাবী ভুক্তভোগীদের। 
সেচ্ছাসেবী সংগঠক ইমরান জানান, অবিলম্বে ঈদগাঁওতে ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল নির্মাণ করে বিভিন্ন গ্রামাঞ্চল থেকে আসা রোগীদের সেবা নিশ্চিত করার দাবী। 
জালালাবাদ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের উপসহকারী মেডিকেল অফিসার আবুল বশর জানান,এত বিপুল জনগোষ্ঠীর কথা বিবেচনা করে ঈদগাঁওতে ২০ শষ্যা বিশিষ্ট একটি হাসপাতাল অতীব জরুরী।  

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*