Wednesday , 21 April 2021
Home » দৈনিক সকালবেলা » বিভাগীয় সংবাদ » খুলনা বিভাগ » লাইফ সাপোর্টে থাকা কুষ্টিয়া সুগার মিল বন্ধ হয়ে গেল
লাইফ সাপোর্টে থাকা কুষ্টিয়া সুগার মিল বন্ধ হয়ে গেল

লাইফ সাপোর্টে থাকা কুষ্টিয়া সুগার মিল বন্ধ হয়ে গেল

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি :

 হবো হবো করতে করতে অবশেষে বন্ধ হয়ে গেল কুষ্টিয়া সুগার মিল । ১৯৬১ সালে স্থাপিত এই মিলটি নিয়মিত, চিনি, চিটাগুড়, মন্ড ও জৈব সার উৎপাদন করে আসছিলো । প্রথম কয়েক বছর প্রতিষ্ঠানটি লাভে থাকলেও এক সময় মুখ থুবড়ে পড়ে । ধারাবাহিকভাবে লোকসানে চলে যায় প্রতিষ্ঠানটি ।  কুষ্টিয়া সুগারমিল ইতিমধ্যে ৪১৫ কোটি টাকা লোকসানের মধ্যে ছিলো ।পাট কল এর মতই ধারাবাহিকতায় এবার লোকসানে থাকা চিনিকল বন্ধ করতে সরকার একটি পর্যবেক্ষণ কমিটি গঠন করে । কমিটির দীর্ঘ যাচাই-বাছাই শেষে কুষ্টিয়া সুগার মিলসহ মোট ৬ টি সুগার মিল সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করা হয় । আগামী বছর আরো দুইটি সুগার মিল বন্ধের সুপারিশ করা হয়েছে । তবে অধিকতর পর্যবেক্ষণ করে কমিটি কোনো কোনো মিলকে আবারও চালু করতে পারেন বলে জানা গেছে ।
দেশের শিল্পের বিকাশ ও কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে মিলগুলো প্রতিষ্ঠিত হলেও সময়ের পরিবর্তনে আজ তা রাষ্ট্রের বোঝা হয়ে পড়েছে । সরকারের সঠিক পদক্ষেপ এর অভাবে ১৫ টি চিনিকলের মধ্যে মাত্র একটি লাভের পথে, দুইটি চিনিকলের সক্ষমতা ৫০% এর উপরে । আর বাকিগুলো পথ হারিয়ে মুখ থুবড়ে পড়ে আছে লাইফ সাপোর্টে ।
সার্বিক উৎপাদন ক্ষমতা ও ব্যয় বৃদ্ধি সহ অস্বাভাবিক দুর্নীতি ও নানা কারণে চিনিকলগুলো লোকসান হয় প্রতিবছর । ধারাবাহিক লোকসানে সরকার ভর্তুকি দিতে দিতে হাঁপিয়ে উঠেছে । এই কারণে চিনিকল গুলো নিয়ে সরকার নড়েচড়ে বসেছে ।
সরকার মিলগুলোর হিসাব-নিকাশ করতে উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন একটি কমিটি গঠন করে । ২০২০ -২০২১ আখ মাড়াই মৌসুমে এই কমিটি সুপারিশ করে নয়টি মিলে আখ মাড়াই নিয়মিত থাকবে আর বাকি ছয়টি মিলে আখ মাড়াই বন্ধ থাকবে । বন্ধ মিলের মধ্যে আছে কুষ্টিয়া সুগার মিলস লিমিটেড ।
তবে কমিটি সূত্রে জানা যায়, বন্ধ হয়ে যাওয়া মিল গুলোর কিছু কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে চালু নয়টি মিলে বদলি করা হবে । আর কিছু বর্তমান মিলে থাকবে । তবে মিলটি বন্ধ হওয়ায় ঠিক কতজন শ্রমিকের কপাল  ‍পুড়তে যাচ্ছে তার সংখ্যা এখনই নির্দিষ্টভাবে বলা যাচ্ছে না ।
এ বিষয়ে কুষ্টিয়া সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের এক নেতা জানান, মিলটি বন্ধ না করে সঠিক তদারকি ও টাস্কফোর্স গঠন এবং দুর্নীতি বন্ধ করে মিলটি আধুনিক করে গড়ে তুলতে হবে । কুষ্টিয়া সুগার মিলের শ্রমিক নেতা সুমন বলেন, সরকার শ্রমিকদের কথা চিন্তা করলো না । কুষ্টিয়া সুগারমিল আমাদের রুজি রুটি । সরকার শুধু লোকসান এর কথা চিন্তা করলো কিন্তু শ্রমিকদের জীবনের কথা চিন্তা করলো না ।কুষ্টিয়ার সাধারণ মানুষ মনে করেন, কুষ্টিয়ার ঐতিহ্য ও একমাত্র ভারি শিল্প প্রতিষ্ঠান কুষ্টিয়া সুগার মিলটি বন্ধ করা সরকারের সঠিক সিদ্ধান্ত নয় । সরকার চাইলে লোকসান ঠেকাতে সক্ষম । মিলকে ১০০% দুর্নীতি মুক্ত করে, পুরাতন যন্ত্রাংশ মেরামত করে মিলকে সম্পূর্ণ আধুনিক করে পুনরায় চালু করতে হবে ।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*