Friday , 22 January 2021
E- mail: news@dainiksakalbela.com/ sakalbela1997@gmail.com
Home » অর্থনীতি » অনলাইন ব্যবসায় সফল মহম্মদপুরের নারী উদ্দ্যোক্তা ‘বনি’
অনলাইন ব্যবসায় সফল মহম্মদপুরের নারী উদ্দ্যোক্তা ‘বনি’

অনলাইন ব্যবসায় সফল মহম্মদপুরের নারী উদ্দ্যোক্তা ‘বনি’

মহম্মদপুর ( মাগুরা)   উপজেলা প্রতিনিধি।      
ব্যবসায়ী বাবা ও মায়ের মেয়ে বনি জন্ম ও বেড়ে ওঠা মাগুরা জেলার মহম্মদপুর উপজেলায়।  ২০১৬ সাল থেকে পড়াশোনার জন্য রাজশাহীতে আসেন বনি। তিনি বিএসসি ইন নার্সিং শেষ করেছেন রাজশাহী নার্সিং কলেজ থেকে। পড়ালেখার পাশাপাশি টিউশনির জমানো টাকায় হয়েছেন প্রতিষ্ঠিত। অনলাইন ব্যবসায় বনে গেছেন লাখপতি।  হয়ে উঠেছেন জনপ্রিয়।স্বাধীনভাবে কাজ করে মেধা ও সৃজনশীলতার বিকাশ ঘটানোর চিন্তা থেকে উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা বনির। 
একজন উদ্যোক্তার প্রথম এবং প্রধান কাজ হলো স্বপ্ন দেখা। একজন ব্যবসায়ী ও একজন উদ্যোক্তার মধ্যে এটাই পার্থক্য। স্বপ্নবাজ বনি তার মনের লালিত স্বপ্ন পূরন করতে কাজ শুরু করেন হ্যান্ডমেড জুয়েলারী নিয়ে। তবে তিনি এখন রেশমের সিল্ক, মসলিম ও তাঁত শাড়ি, ইউনন্টার কালেকশন নিয়েও কাজ করেন। নিজ হাতে তৈরী পন্য বিক্রি করে অনলাইনে সাড়া পেয়েছেন এই নারী উদ্যোক্তা।
মাগুরা জেলার মহম্মদপুরউপজেলার নিভৃত পল্লীতে বনির  বসবাস । তিনি উপজেলার বাবুখালী গ্রামের মঞ্জু মোল্যার বড় মেয়ে। করোনাকালীন সময়ে পড়াশোনা নেই, আবার চাকুরী করার সুযোগও নেই। চাকরি তার পছন্দ ছিলো না। নিজে কিছু করার অনেক ইচ্ছে ছিল। করোনাকালীন সময়ে কলেজ বন্ধ, পড়াশোনার চাপ নেই। বাসায় বসে ভাবতেন কিছু করতে পারলে মন্দ হত না, নিজের আলাদা পরিচয় তৈরী করতে স্বপ্ন দেখতেন।
প্রথমে বনি চিন্তা করেন কোন বিষয়ে সে দক্ষ। ছোটবেলা থেকে বনির একটা অভ্যাস ছিল বাজার থেকে গহনা কিনে একটার পার্ট খুলে অন্যটায় জোড়া লাগানো। ফলে গহনায় যোগ হতো নতুন সৌন্দর্য্য। তখন বনি গহনা নিয়ে কাজ শুরু করেন। এই ভাবনা থেকেই বনির হ্যান্ডমেড জুয়েলারি বা নিজের হাতের তৈরী গহনা নিয়ে পথচলা শুরু হয়।
একদিন বনি ফেসবুক উই (উইমেন এন্ড ই-কমার্স) গ্রুপের সন্ধান পায়। সেখানে হাজার হাজার উদোক্তা। তাদের দেখে বনির উদ্দ্যোক্তা হওয়ার ইচ্ছা আরো প্রবল হয়। চলতি বছরের ২২ জুলাই বনি “মৌখি” নামে একটি ফেসবুক পেজ খুলে তার মাধ্যমে হাতে তৈরী গহনা বিক্রি শুরু করেন।
লাখপতি বনির মার্কেটিং খরচসহ উইমেন এন্ড ই-কমার্স ফোরাম (উই) তে ৪৬ হাজারসহ তার সেল এখন প্রায় দেড় লক্ষ টাকার কাছাকাছি। সর্বপ্রথম মায়ের কাছে ২০০ টাকার পন্য সেল করে এখন তিনি দেশের ২৯ জেলায় তার ব্যবসা শুরু করেছেন। তবে তার সবচেয়ে বেশি সেল হয় রাজশাহী জেলায়।
বনি বলেন, টিউশনির জমানো মাত্র ৫০০০ টাকা থেকে শুরু করেছিলাম আমার স্বপ্ন। এরপর আমার মা ও প্রিয় কিছু ব্যাক্তির সহযোগীতায় আমার কাজ এগিয়ে নেই। আমি মুলত কাঠ, মেটাল, আর্টিফিশিয়াল ফুল দিয়ে গহনা তৈরী করি। অনলাইন অফলাইন মিলায়ে এ পর্যন্ত আমার মোট হাতে তৈরী গহনা বিক্রি করেছি প্রায় ৪০ হাজার টাকা। সব মিলিয়ে এখন লাখপতি। পাশাপাশি রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী রেশমের সিল্ক, মসলিম শাড়িও অনলাইনের মাধ্যমে বিক্রি শুরু করেছি। ভবিষ্যৎ এ রেশম পোকার সাথে সম্পর্ক রাখতে চাই। আমার মৌখির প্রোডাক্ট সারাদেশ সহ বিদেশে ছড়িয়ে দিতে চাই।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*