Thursday , 22 April 2021
Home » দৈনিক সকালবেলা » উপজেলার খবর » কলাপাড়া পৌরসভাকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে পুনরায় মেয়র হতে চান বিপুল হাওলাদার
কলাপাড়া পৌরসভাকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে পুনরায় মেয়র হতে চান বিপুল হাওলাদার

কলাপাড়া পৌরসভাকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে পুনরায় মেয়র হতে চান বিপুল হাওলাদার

কলাপাড়া প্রতিনিধি:

বিপুল চন্দ্র হাওলাদার গত ৩০ শে ডিসেম্বর ২০১৫ সনে ব্যাপক ভোটে নির্বাচিত হওয়ার মধ্য দিয়ে কলাপাড়া পৌরসভায় মেয়র পদে শুভ যাত্রা শুরু করেন। অনেক সীমাবদ্ধতার মধ্যেও বিগত পাঁচ বছরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মুরাল নির্মাণ সহ সফলভাবে সম্পন্ন করেন শহীদ শেখ কামাল অডিটোরিয়ামের নির্মাণ কাজ। এছাড়াও তার উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের মধ্যে দৃষ্টি কেড়েছে শিশুপার্ক ওয়ার্কওয়ে, ড্রেন-কালভার্ট, বাসস্ট্যান্ড, সাইক্লোন সেল্টার, সড়ক বিদ্যুতায়ন, পুকুরের চারিধারে ওয়ার্কওয়ে সহ সৌন্দর্য বর্ধনকারী প্রকল্প। বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের ব্যবস্থায়  নতুন ওভারহেড ট্যাংকি ও সঞ্চালন পাইপ লাইন স্থাপন। তার অন্যতম একটি সফল  সংযোজন ছিল বিশুদ্ধ পানীয়় সরবরাহ শাখায় নতুন বৃহৎ আকৃতির  জেনারেটর স্থাপন। যেটি সংযোজনের মাধ্যমে ধর্মপ্রাণ মুসুল্লিরা অজু করার সময় পেয়েছেন নিরবিচ্ছিন্ন পানি সেবা। গৃহিণী ও সকল শ্রেণী-পেশার মানুষেরা পেয়েছেন চাহিদা অনুযায়ী পানী। যদিও পানি সরবরাহ শাখার কিছু কর্মচারীর অলসতার কারণে নিরবিচ্ছিন্ন পানি সরবরাহে কিছুটা বিঘ্ন ঘটেছিল তারপরও বিদ্যুৎ না থাকাকালীন অবস্থায় পানি সরবরাহের এই নতুন ব্যবস্থাটি ছিল অতুলনীয়। পানি সরবরাহ শাখার জেনারেটর স্থাপন বাংলাদেশের মধ্যে  সর্বপ্রথম বলে দাবি করেছেন কলাপাড়া পৌর প্রধান। দোসরা অক্টোবর ১৯৫৮ সনে জন্মগ্রহণ করেন বিপুল  চন্দ্র হাওলাদার। প্রাথমিক হাই স্কুল ডিঙিয়ে এইচএসসি পাস করেন তিনি। ১৯৭৯ সনে কলাপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব কাধে তুলে নেন। ১৯৮১ সন থেকে ১৯৯৭ সন পর্যন্ত কলাপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর ও প্রচার সম্পাদকদের দায়িত্ব সফল ভাবে পালন করেন। ১৯৯৭ সন থেকে ২০২০ সন পর্যন্ত পাঁচবার সম্মেলনের মাধ্যমে তিনি কলাপাড়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে অদ্যবধি পর্যন্ত সফলতা ও সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। ১৯৭৫ সনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরপরই বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও বিএনপি জামাত জোট বিভিন্ন মেয়াদে ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে তিনি ও তার পরিবার বিভিন্নভাবে জেল জুলুম ও ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন।এছাড়া সংবাদকর্মীর পেশায় দীর্ঘদিন অতিবাহিত করার পরে তিনি ঐতিহ্যবাহী কলাপাড়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন  দুই বছর, তৎপরবর্তীতে একটানা বারো বৎসর সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন। যেটা কলাপাড়া প্রেসক্লাবের স্বর্ণযুগ বলে খ্যাত। বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন ১৫ বছরের বেশি সময় ধরে। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডির সদস্য এর দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। মন্দির-মসজিদ সহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত থেকে সেবা ও  উন্নয়ন মূলক কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িয়ে প্রশংসা কুড়িয়েছেন সবার।১ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা অলি উল্লাহ জানান, বিগত পাঁচ বছরে তার মাধ্যমে কেউ ক্ষতির সম্মুখীন হননি।৩ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কলাপাড়া উপজেলা শাখার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মঞ্জুরুল আলম এ প্রতিবেদককে জানান বিগত পাঁচ বছরে তিনি কোন ব্যক্তিগত বাহিনী তৈরি না করে শান্তিপূর্ণভাবে পৌরসভা পরিচালনা করেছেন।পৌরসভার উন্নয়ন কর্মকান্ড যথেষ্ট গতিশীল ছিল। এসব কারণে কলাপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল হয়েছে বলে আমি মনে করি। এ বিষয়ে বর্তমান কলাপাড়া পৌর মেয়র ও ভবিষ্যৎ আওয়ামীলীগের নৌকা মার্কার  মনোনয়ন প্রত্যাশী বিপুল চন্দ্র হাওলাদার বিডি ভয়েজের এ প্রতিবেদককে বলেন, বিগত পাঁচ বছরে কলাপাড়া পৌরবাসিকে বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড সহ শান্তিপূর্ণভাবে পৌরসভাকে পরিচালনা করতে পেরেছি। এই পাঁচ বছরে আমার কোন গুন্ডাবাহিনী কিংবা চাঁদাবাজ বাহিনী ছিল না যেটা পৌরবাসী ইতিবাচকভাবে দেখছেন। আগামী পাঁচ বছর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও কলাপাড়াবাসী যদি আমাকে আরেকবার সুযোগ দেন তাহলে কলাপাড়া পৌরসভা ও পৌরবাসীকে স্বপ্নের দারগোড়ায় পৌঁছাতে নিরলস ভাবে কাজ করে যাবো।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*