Friday , 18 June 2021
ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » দুর্ঘটনা » ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আশির্ধো বৃদ্ধের আত্মহত্যা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আশির্ধো বৃদ্ধের আত্মহত্যা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি।।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে মদন মোহন শীল (৮৫) নামের আশির্ধো এক বৃদ্ধ আত্মহত্যা করেছেন।

শনিবার (৩ এপ্রিল) রাত ৮টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেল স্টেশনের কলেজপাড়ার পূর্ব রেলগেট সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মদন মোহন শীল জেলা শহরের শিমরাইল কান্দি এলাকার মৃত ক্ষেত্র মোদন শীলের পুত্র। আত্মহত্যা করার আগে মদন মোহন শীল অসুস্থ ছিলেন।

উদ্ধারকারী ও প্রত্যক্ষদর্শী জানায়, আজ রাতে চিটাগং থেকে ছেড়ে আসা ঢাকা অভিমুখী মহানগর গোধূলি ট্রেনটি কলেজপাড়া রেলগেইট পাড় হওয়ার সময় হঠাৎ উত্তর দিক থেকে মদন মোহন শীল ট্রেনের নিচে ঝাঁপিয়ে পড়েন। তখন তাকে আহত অবস্থায় দেখতে পেয়ে কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মীর সহযোগিতায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আব্দুল্লাহ আল-মামুন আহত মদন মোহন শীলকে চিকিৎসা দিয়ে সার্জারী বিভাগে ভর্তি দেন এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য দ্রুত ঢাকা নেওয়ার পরামর্শ দেন৷ কিন্তু ঢাকা নেওয়ার আগে সার্জারী বিভাগে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আশির্ধো বৃদ্ধের মৃত্যু হয়।

আত্মহত্যা কেন করেছেন এবিষয়ে জানতে চাইলে মদন মোহন শীলের ছেলে মানিক শীল জানান, আজ সন্ধ্যার দিকে তার বাবা বাসা থেকে বের হয়েছিল। তারপর থেকে তার বাবাকে আর খোঁজে পাচ্ছিল না। রাত সাড়ে ৮টার দিকে হাসপাতাল থেকে তার কাছে ফোন আসে, ফোন জানতে পারে তার বাবা ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে গুরুতর আহত হয়েছে। পরে হাসপাতালে গিয়ে দেখে তার বাবা মারা গেছে। তিনি আরও বলেন বাবার সাথে আমরা সবাই দুপুরে একসাথে খেয়েছি। বাবা আত্মহত্যা করার কোন কারন দেখি না৷ বাবা কি কারনে ট্রেনে নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছে ভগবান ভাল জানেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশন পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ- পুলিশ পরিদর্শক (এস আই) সেতাফুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মৃত্যুর খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ যায়। হাসপাতালেও পুলিশ পাঠানো হয়েছে। বিস্তারিত জেনে পরবর্তীতে জানানো হবে।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*