Wednesday , 12 May 2021
ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » উপজেলার খবর » নাঙ্গলকোটে পুলিশের এ এস আইয়ের হামলার শিকার পৌর কাউন্সিলর ও প্রধান শিক্ষক
নাঙ্গলকোটে পুলিশের এ এস আইয়ের হামলার শিকার পৌর কাউন্সিলর ও প্রধান শিক্ষক

নাঙ্গলকোটে পুলিশের এ এস আইয়ের হামলার শিকার পৌর কাউন্সিলর ও প্রধান শিক্ষক

মোঃ শাহাদাত হোসেন, নাঙ্গলকোট কুমিল্লা নাঙ্গলকোটে পুলিশের এ এস আইয়ের হামলার শিকার হয়েছে এক পৌর কাউন্সিলর ও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।  শুক্রবার দুপুরে নাঙ্গলকোট পৌর সদরের এনসিসি ব্যাংকের পাশের সড়কে এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন, পৌরসভার ৩ নং ওয়াডের্র কাউন্সিলর রেজাউল হক রেজু ও নাঙ্গলকোট মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হুমায়ূন কবির। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন নাঙ্গলকোট থানার ওসি বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী।প্রত্যক্ষদর্শী জানান, নাঙ্গলকোট থানা থেকে ক্লোজড এ এস আই মো: হানিফ নাঙ্গলকোট বাজার হয়ে ঢালুয়া সড়ক দিয়ে একটি প্রাইভেটকার  নিয়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় মোটরসাইকেল যোগে নাঙ্গলকোট বাজারের আসছিলেন কাউন্সিলর রেজু ও শিক্ষক হুমায়ূন কবির। প্রাইভেটকারটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয়। এতে গাড়ীটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। কাউন্সিলর ও শিক্ষক প্রাইভেটকার চালককে কেন ধাক্কা দিয়েছে প্রশ্ন করলে এ এস আই হানিফ গাড়ী থেকে নেমে শিক্ষক হুমায়ূন কবির ও কাউন্সিলর রেজাউল হককে বেধড়ক মারধর করে ও গালমন্দ করতে থাকে। এব্যাপার কাউন্সিলর রেজাউল হক রেজু ও নাঙ্গলকোট মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হুমায়ূন কবির অভিযোগ করেন বলেন, দুপুরে বাজারে যাওয়ার পথে নিজাম উদ্দিনের ঔষধের দোকানের পশ্চিম পাশে  একটি প্রাইভেটকার আমাদের মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয়। এরপর গাড়ী থেকে নেমে নাঙ্গলকোট থানার এ এস আই মো: হানিফ আমাদের মারধর ও গালমন্দ করে। অভিযুক্ত এ এস আই মো: হানিফের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, মারধর করেছি, অস্লীল ভাষায় গালমন্দও করেছি। তারাও আমার গাড়ীতে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করেছে।এব্যাপারে নাঙ্গলকোট থানার ওসি বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, সংবাদ পাওয়ার পর ঘটনাস্থল গিয়েছি। এ এস আই হানিফ প্রায় দুই মাস পূর্বে নাঙ্গলকোট থানা থেকে ক্লোজড হন। কেউ লিখিত অভিযোগ করলে বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তকর্তাদের জানানো হবে। 

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*