Saturday , 24 July 2021
ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » অপরাধ ও দূর্নীতি » সেই কৃষক দম্পতি হত্যার মূল রহস্য উদঘাটন, আসামির লোমহর্ষক জবানবন্দি
সেই কৃষক দম্পতি হত্যার মূল রহস্য উদঘাটন, আসামির লোমহর্ষক জবানবন্দি

সেই কৃষক দম্পতি হত্যার মূল রহস্য উদঘাটন, আসামির লোমহর্ষক জবানবন্দি

মাদারীপুর প্রতিনিধি: মাদারীপুরে কালকিনিতে কৃষি কাজের জন্য আশরাফুল মোল্লা নামে এক শ্রমিক ভাড়া করে আনেন কৃষক মোয়াজ্জেম সরদার। সেই শ্রমিকের কুদৃষ্টি পড়ে মোয়াজ্জেম সরদারের কিশোরী মেয়ের উপর। এরপর খুনের পরিকল্পনা করে ওই কৃষক দম্পতিকে। একে একে খুন করে দুইজনকে। পরে মরদেহ গুম করার জন্য হাত পা বেঁধে ফেলে দেয় একটি খালের মধ্যে। এরপর রাতভর ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে ভোরে পালিয়ে যায় সে। এমনই লোমহর্ষকর ঘটনা ঘটেছে মাদারীপুরের কালকিনিতে। এই ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে আশরাফুল মোল্লা। 

পিবিআই’র পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ জানান, সম্প্রতি কৃষি কাজ করতে অপরিচিত কয়েকজন যুবক কালকিনি উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের কোলচুরি সস্তাল গ্রামে আসে। পরে ওই এলাকার কৃষকের মেয়ের দিকে কুনজর পরে আশরাফুলের। এতে বাঁধা দেন কৃষক দম্পতি। পরবর্তীতে তাদের হত্যার পরিকল্পনা করে আশরাফুল। গত ৪ এপ্রিল প্রথম ওই কৃষককে ডেকে নিয়ে গামছা দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরে তার স্ত্রীকে মোবাইলে ডেকে নিয়ে একইভাবে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে আশরাফুল।  তিনি আরও জানান, আলোচিত স্বামী-স্ত্রী খুনের ঘটনায় গ্রেফতার একমাত্র আসামি আশরাফুল মোল্লা (৩৯) আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। শুক্রবার (২৩ এপ্রিল) সন্ধ্যায় জেলার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ হোসেনের আদালতে জবানবন্দি দেয় আশরাফুল। পরে তাকে পাঠানো হয় কারাগারে। এর আগে গত বৃহস্পতিবার বিকেলে নড়াইলের সদর উপজেলার শৈলপুর থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন গোপালগঞ্জ জেলার একটি টিম। গ্রেফতার আশরাফুল নড়াইল সদর উপজেলার মধ্যপল্লী এলাকার আকবর মোল্লার ছেলে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বিষয়টি পরিবারের লোকজন কৃষক দম্পতিকে নিখোঁজ দাবি করে কালকিনি থানায় একটি অপহরণ মামলা করেন। নিখোঁজের ৪ দিন পর গত ৯ এপ্রিল রাজারচরের শুকিয়ে যাওয়া একটি খালের ভেতর থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় ওই স্বামী-স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে মামলাটির দায়িত্ব নেয় পিবিআই। তথ্য প্রযুক্তির সহয়তায় ঘটনার ১৩দিন পর নড়াইল থেকে এই ঘটনার প্রধান পরিকল্পনাকারী আশরাফুলকে গ্রেফতার করে পিবিআই। এসময় নিহত স্বামী-স্ত্রীর ব্যবহৃত মোবাইল ফোনও উদ্ধার করা হয়।

পিবিআই পুলিশ সুপার জানিয়েছে, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পোশাক ব্যবহার করে ও সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা দাবি করে দেশের বিভিন্ন স্থানে একাধিক অপরাধ করে আশরাফুল। তার বিরুদ্ধে যশোর, নড়াই ও রাজশাহীতে ধর্ষণ ও প্রতারনার অভিযোগে ৫টি মামলা রয়েছে। কৃষক দম্পতি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা শুধু মাত্র তাদের মেয়ের সাথে শারিরিক সম্পর্ক করার জন্য হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। স্বামী-স্ত্রী হত্যার পরে রাতে তাদের মেয়ের সাথে জোড়পূর্বক একাধিকবার শারিরিক সম্পর্ক করে আশরাফুল। পরে ভোরে পালিয়ে যায় সে। হত্যাকান্ডের ঘটনায় শুধুমাত্র আশরাফুল একাই জড়িত বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। 

তিনি আরও জানান, যেহেতু আশরাফুল আদালতে ধর্ষণের কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে তাই আদালত নির্দেশ দিলে তার বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা হতে পারে। ধর্ষণ মামলা না হলে আমরা ধর্ষণের বিষয়টি উল্লেখ করে আলাদা চার্জশিট দিব।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*