Wednesday , 4 August 2021
ব্রেকিং নিউজ
Home » জাতীয় » রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে সৃষ্ট অনিশ্চয়তায় উদ্বেগ প্রধানমন্ত্রীর
রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে সৃষ্ট অনিশ্চয়তায় উদ্বেগ প্রধানমন্ত্রীর
--সংগৃহীত ছবি

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে সৃষ্ট অনিশ্চয়তায় উদ্বেগ প্রধানমন্ত্রীর

অনলাইন ডেস্ক:

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে সৃষ্ট অনিশ্চয়তায় উদ্বেগ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল মঙ্গলবার সকালে ঢাকায় গণভবনে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের (ইউএনজিএ) ৭৫তম অধিবেশনের সভাপতি ভোলকান বোজকিরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে তিনি এ উদ্বেগ জানান। পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

ভোলকান বোজকির গতকাল সকালেই ঢাকায় পৌঁছান। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতিকে স্বাগত জানান অ্যাম্বাসাডর অ্যাট লার্জ এম জিয়াউদ্দিন। পরে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। টুইট বার্তায় ভোলকান বোজকির জানান, প্রধানমন্ত্রী ও তিনি রোহিঙ্গাদের দুর্দশা, মিয়ানমার পরিস্থিতি, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব, মানুষকেন্দ্রিক উন্নয়নের গুরুত্ব, লৈঙ্গিক সমতা ও নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে আলোচনা করেছেন। এ ছাড়া তাঁরা শান্তির সংস্কৃতির গুরুত্ব, জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রম নিয়ে আলোচনা করেছেন।

বাসস জানায়, বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি) থেকে উন্নত দেশ হয়ে একটি উদাহরণ সৃষ্টি করেছে বলে জানিয়েছেন ভোলকান বোজকির। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন এলডিসি থেকে গ্র্যাজুয়েশনের একটি দৃষ্টান্ত। বাংলাদেশের মানুষ খুব সাহসী এবং তারা এটা এগিয়ে নেবে।’

ভোলকান বোজকিরকে উদ্ধৃত করে প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম বলেন, উভয়ে (শেখ হাসিনা ও ভোলকান বোজকির) আসন্ন জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশন, জলবায়ু পরিবর্তন, রোহিঙ্গা এবং কভিড-১৯সহ নানা বিষয়ে কথা বলেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বেরও ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি বাংলাদেশের লিঙ্গ সমতা এবং নারীর ক্ষমতায়নের প্রশংসা করে বলেন, ‘বাংলাদেশ একজন নারী প্রধানমন্ত্রী দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে।’

এ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ দ্বারা অনুপ্রাণিত; কেননা তিনিই প্রথম সংসদে ১০ শতাংশ নারী কোটা বরাদ্দ করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা সমাজের সর্বক্ষেত্র বিশেষ করে রাজনীতি এবং প্রশাসনে নারীর ক্ষমতায়নে কেবল তাঁর পদাঙ্কই অনুসরণ করছি।’ প্রধানমন্ত্রী যোগ করেন, সংসদ নেতা, বিরোধীদলীয় নেতা, জাতীয় সংসদের স্পিকার এবং সংসদ উপনেতা বর্তমানে একজন নারী।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতি বলেন, সরকারপ্রধানদের সশরীরে উপস্থিতির মাধ্যমে তাঁরা এ বছরের সাধারণ অধিবেশন আয়োজনের চিন্তা-ভাবনা করছেন।

ভোলকান বোজকির ১০ লাখের ওপর রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেওয়ার সাহসী ভূমিকারও প্রশংসা করেন। শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত প্রায় ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গার পাশে দাঁড়িয়েছে। প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, তাঁরা বিষয়টি নিয়ে মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে আলোচনা করেছেন কিন্তু এ ব্যাপারে বলার মতো কোনো অগ্রগতি সাধিত হয়নি।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, তাঁর সরকার ভাসানচরে প্রায় এক লাখ রোহিঙ্গার আবাসনের ব্যবস্থা করেছে। যদিও ১৮ হাজার রোহিঙ্গা সেখানে স্বেচ্ছায় যেতে রাজি হয়েছে। এ প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, তাঁরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর দ্বারা অনুপ্রাণিত, যিনি সব সময় বিপন্ন মানবতার পাশে দাঁড়িয়েছেন।

শেখ হাসিনা ১৯৭৫ সালে জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার পর তিনি এবং তাঁর বোন যে বৈরী পরিস্থিতির শিকার হয়েছিলেন তা-ও তুলে ধরেন। অটিজম এবং নিউরোডেভেলপমেন্টাল ডিজঅর্ডারবিষয়ক জাতীয় উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারপারসন এবং প্রধানমন্ত্রীর কন্যা সায়মা ওয়াজেদ এবং অ্যাম্বাসাডর অ্যাট লার্জ মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এবং পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

ভোলকান বোজকির গতকাল ঢাকায় ধানমণ্ডিতে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানান। তিনি আজ বুধবার কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন করে পাকিস্তানের উদ্দেশে বাংলাদেশ ছাড়বেন।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*