Thursday , 5 August 2021
ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » বিভাগীয় সংবাদ » চট্টগ্রাম বিভাগ » হেফাজতের শীর্ষ দুইনেতাকে গ্রেফতারের দাবিতে ছাত্রলীগের আলটিমেটাম
হেফাজতের শীর্ষ দুইনেতাকে গ্রেফতারের দাবিতে ছাত্রলীগের আলটিমেটাম

হেফাজতের শীর্ষ দুইনেতাকে গ্রেফতারের দাবিতে ছাত্রলীগের আলটিমেটাম

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি।। 
সহিংসতার ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া হেফাজতে ইসলামের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকে গ্রেফতারের দাবি এবং স্থানীয় সংসদ সদস্যের করা মামলা নথিভুক্ত করতে আলটিমেটাম দিয়েছে জেলা ছাত্রলীগ।
আগামী ১ জুনের মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের এমপি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর মামলার আবেদন নথিভুক্ত করে জেলা হেফাজতের নেতাদেরকে গ্রেফতার না করা হলে মানববন্ধন ও পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে ছাত্রলীগ।
বুধবার (২৬ মে) মধ্যরাতে ফেসবুকে পৃথক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে এ আলটিমেটাম দেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল হোসেন রুবেল ও সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন শোভন।
জানতে চাইলে তারা বলেন, প্রায় দুমাস অতিবাহিত হওয়ার পরও ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে হেফাজতের তাণ্ডবের সঙ্গে জড়িত মূলহোতা মাওলানা সাজিদুর রহমান এবং মুফতি মোবারক উল্লাহকে গ্রেফতার করতে ব্যর্থ। এদের মধ্যে কয়েকজন চুনোপুঁটিকে গ্রেফতার করা হয়। তারা কারণ হিসেবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষের কাছে ব্যাখ্যা দিয়েছিল, হেফাজতের তাণ্ডবের মামলায়, তারা এজাহার ভুক্ত আসামি নয়। পক্ষান্তরে যখন ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসীর দাবিতে এমপি হামলার নির্দেশদাতাদের বিরুদ্ধে থানায় এজাহার দাখিল করার পরও সেইটিকে এজাহার ভুক্ত করেনি।
তারা আরও বলেন, যেহেতু ৩০ মে পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা দেয়া আছে। তাই আগামী ১ জুন এমপির আবেদন করা মামলাটি নথিভুক্ত করতে ও জেলা হেফাজতের সভাপতি সাজিদুর রহমান-সাধারণ সম্পাদক মুফতি মোবারক উল্লাহকে গ্রেফতারের দাবিতে রেলওয়ে স্টেশনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হবে। দাবি পূরণ হওয়ার আগ পর্যন্ত ২ জুন থেকে লাগাতার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সামনে অনির্দিষ্টকালের জন্য অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।
সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কাজী মাসুদ ইবনে আনোয়ার মামলার ব্যাপারে বলেন, মামলাটি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য সিআইডিতে পাঠানো হয়েছিল। তাদের রিপোর্ট আসার পর এর প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্মকতাবৃন্দ এরইমধ্যে রিপোর্টটি দ্রুততম সময়ে আনার জন্য চেষ্টা করছেন।
উল্লেখ্য, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে ২৬ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যাপক তাণ্ডব চালায় হেফাজতে ইসলামের কর্মীরা। এ সময় জেলার ৩৮টি সরকারি-বেসরকারি স্থাপনায় হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে। এতে নিহত হয় ১৬ জন।
এসব ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে স্থানীয় এমপি মোকতাদির চৌধুরী বাদী হয়ে হেফাজতে ইসলামের ব্রাহ্মণবাড়িয়া শাখার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে সদর মডেল থানার মামলার আবেদন করেন।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*