Thursday , 29 July 2021
ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » পাচঁফোড়ন » কাজী নজরুলকে ধারন করতে হবে : মুক্তিযোদ্ধা সাদেক সিদ্দিকী
কাজী নজরুলকে ধারন করতে হবে : মুক্তিযোদ্ধা সাদেক সিদ্দিকী

কাজী নজরুলকে ধারন করতে হবে : মুক্তিযোদ্ধা সাদেক সিদ্দিকী

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ছিলেন সৃষ্টিশীল দুঃসাহসী বলে মন্তব্য করে জাতীয় পার্টি-জেপি প্রেসিডিয়াম সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক সিদ্দিকী বলেন, নজরুল নিজের জীবন বিলিয়ে দিয়েছিলেন পরার্থে। স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিয়ে জনগণ ও সমাজের জন্য কাজ করেছেন। তার স্বপ্নের যায়গায় সাধারণ মানুষ। কিন্তু বর্তমান সমাজে সবার মাঝে দেখা যায় আত্মসাৎ প্রবণতা। আমাদের তরুণ প্রজন্মকে এখান থেকে বের করে আনতে হবে। আর কাজী নজরুলের চেতনা আমাদেরকে বুঝতে হবে এবং ধারন করতে হবে।
রবিবার (৩০ মে) মগবাজারের জনতার টিভি ভবনে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২২তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে তর্কবাগীশ সাহিত্য পরিষদ আয়োজিত “নজরুল আড্ডায়” প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 
তিনি বলেন, আমাদের সংগ্রামে সাহসে নজরুল অনন্ত অনুপ্রেরণার উৎস।বাঙালী মুক্তির সংগ্রামে নজরুল সৃষ্টি আমাদের উদ্দীপ্ত করেছে। আমৃত্যু নজরুল নিপীড়িত শোষিত মানুষের পে কথা বলেছেন। অসাম্প্রদায়িকতার জয়গান গেয়েছেন প্রতিটি রচনায়। তাই নতুন প্রজন্মকে নজরুলের চিন্তা আদর্শকে ধারন করে এগিয়ে যেতে হবে।
তর্কবাগীশ সাহিত্য পরিষদের সভাপতি ড. কবি হাবিবুর রহমান খানের সভাপতিত্বে এবং রাজনীতিক ও মানবাধিকার সংগঠক মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা’র সঞ্চালানায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ গণআজাদী লীগের মহাসচিব মুহাম্মদ আতাউল্লাহ খান, আলোচনায় অংশগ্রহন করেন সাবেক সচীব ড. মোহাম্মদ জকরিয়া, বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, বাংলাদেশ কংগ্রেস মহাসচিব এডভোকেট মো. ইয়ারুল ইসলাম, বাংলাদেশ গণআজাদী লীগ সহ-সভাপতি মীর্জা শরিফুল আলম, নজরুল গবেষক ড. সিরাজুল ইসলাম, বাংলাদেশ জাতীয় লীগ ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ড. শাহরিয়ার ইফতেখার, গণ রাজনৈতিক জোট-গর্জো সভাপ্রধান সৈয়দ মঈনুজ্জামান লিটু, রাজনীতিক তাহজিবুল এনাম তুষার, জাতীয় কৃষক-শ্রমিক মুক্তি আন্দোলন সমন্বয়ক কৃষক মো. মহসীন ভুইয়া, জাতীয় নারী সাহিত্য পরিষদ সভাপতি হাছিনা মমতাজ, জাতীয় জাগো নারী ফাউন্ডেশনের সভাপতি রেহানা আক্তার রেনু, সংগঠনের সহ-ষবাপতি কবি মো. ইকবাল হোসেন ভুইয়া, নজরুল সঙ্গীত শিল্পি ওস্তাদ গোলাম মাওলা,  রাজনীতিক মো. জসীমউদ্দিন ভুইয়া, ফারহানা ইসলাম রীমা প্রমুখ। 
সাবেক সচীব ড. মোহাম্মদ জকরিয়া বলেন, কবি নজরুলকে ধারন করতে, লালন করতে হলে তাকে নিয়ে চর্চা করতে হবে। কবির ভাবনাকে ধারন করে তা বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে। আর তা বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে মানব মনে সুন্দরের বোধন ঘটাতে হবে।
রাজনীতিক ও লেখক এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, নজরুল সবসময় প্রকৃতি নিয়ে ভেবেছেন। তার লেখায় আমরা প্রকৃতির ছন্দ খুঁজে পেয়েছি। প্রেম ও দ্রোহের কবি নজরুল। বাঙালির মনে প্রাণে নজরুলকে পৌঁছে দেয়ার মূল প্রয়াসে রাষ্ট্রকে উদ্যোগ গ্রহন করতে হবে। । এই বঙ্গ একদিন স্বাধীন হয়ে বাঙ্গালীর হবে। কবি কাজী নজরুল ইসলাম তাঁর অসংখ্য কবিতা ও গানে স্বাধীন বাংলার স্বপ্ন বুনেছিলেন।
তিনি বলেন, ২০২১ সালের ডিসেম্বরে কাজী নজরুল ইসলামের “বিদ্রোহী” কবিতার শতবর্ষ পূর্তি উপলক্ষে আমাদের নানা কর্মসূচী গ্রহন করে নজরুলকে সাধারন মানুষের নিকট পৌছে দিতে হবে। মোহাম্মদ আতাউল্লাহ খানের এই চিন্তা নজরুল প্রেমিদের খোরাক জোগাবে এবং নজরুলকে সাধারন মানুষের কাছে পৌছে দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। 
স্বাগ বক্তব্যে মোহম্মদ আতাউল্লাহ খান বলেন, নজরুলকে জানতে হবে, নজরুলের দেশপ্রেম বুকে ধারণ করতে হবে। নজরুলের সৃষ্টিশীল কর্মকান্ড, নজরুলের জীবন দর্শন, জীবন আদর্শ কতোটুকু বাংলাদেশ রাষ্ট্রের সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ। নজরুল রাজনৈতিক-সচেতন ছিলেন, কিন্তু ধর্মের রাজনীতিকরণ এবং ধর্মীয় জাতীয়তাবাদের মধ্যযুগীয় উম্মাদনায় সামিল হননি। তাঁর রাজনৈতিক চেতনার পুরোটাই ছিল মৌলবাদের বিরোধিতা; অসাম্প্রদায়িক সেক্যুলার ও সাম্যবাদী রাষ্ট্রের প্রতি ছিল তাঁর আজীবন পক্ষপাত। 

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*