Saturday , 24 July 2021
ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » করোনাভাইরাস » ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় করোনায় প্রাণ গেল বৃদ্ধার
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় করোনায় প্রাণ গেল বৃদ্ধার
--প্রতীকী ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় করোনায় প্রাণ গেল বৃদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি।।

মরণব্যাধি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন সেন্টারে জুবেদা খাতুন (৭৫) নামে এক বৃদ্ধার মৃত্যু হয়েছে।

ওই বৃদ্ধা কসবা উপজেলার মূলগ্রাম ইউনিয়নের রাইতলা গ্রামের শফিক মিয়ার স্ত্রী। গতকাল ভোররাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জুবেদা খাতুনের মৃত্যু হয়।

বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) দুপুরে হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. হিমেল খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, গত মঙ্গলবার করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে জুবেদা খাতুন আইসোলেশন সেন্টারে ভর্তি হয়েছিল। মৃত্যুর পর সামাজিক দুরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিবারের কাছে জুবেদা খাতুনের মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, হাসপাতালে রোগীর চাপ প্রতিদিনই বাড়ছে। চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স ও স্বেচ্ছাসেবকরা করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। এরইমধ্যে আমরা হাসপাতালকে করোনা ডেডিকেটেড করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কিন্তু নির্দেশনা না আসায় সেটি এই মুহূর্তে কার্যকর করা যাচ্ছে না। তাই এ অবস্থায় আমরা পরিস্থিতি সামলে নিয়ে সেবা অব্যাহত রাখতে জরুরি সভা আহ্বান করেছি।

এব্যাপারে কসবা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহা. আলমগীর ভূইয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, উপজেলার রাইতলা গ্রামে জুবেদা খাতুন ২৯ জুনের নমুনা পরীক্ষায় পজেটিভ আসে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার ভোরে তার মৃত্যুু হয়। দুপুরে স্থানীয় মসজিদের মাঠে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে জানাযার পর দাফনকাজ সম্পূর্ণ করা হয়। ওই পরিবারের সবাইকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া পিসিআর ল্যাব ও এন্টিজেনের ২৬৯টি নমুনা পরীক্ষায় আরও ১৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। জেলায় এ পর্যন্ত মোট করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৪ হাজার ২১৫ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৩ হাজার ৭৭১ জন। মৃত্যু হয়েছে ৬৩ জনের। হাসপাতালে আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ২৪ জন এবং হোম আইসোলেশনে রয়েছেন ৪০০ জন।

##

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*