Thursday , 5 August 2021
ব্রেকিং নিউজ
Home » শিক্ষাসংস্কৃতি » ক্যাম্পাস » জবি শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানি : মামলার ১৮ দিনেও গ্রেফতার হয়নি আসামি

জবি শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানি : মামলার ১৮ দিনেও গ্রেফতার হয়নি আসামি

জবি প্রতিনিধি :  

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) এক নারী শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানির ঘটনায় রাজধানীর সূত্রাপুর থানায় মামলা দায়েরের পর ১৮ দিন হলেও এখনো ধরা পড়েনি আসামি। তবে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার দাবি ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী অভিযুক্তকে শনাক্ত করতে না পারায় গ্রেফতারে বিলম্ব হচ্ছে।   
জানা যায়, গত ২৭শে জুন পুরান ঢাকার কলতাবাজার এলাকায় রাত সাড়ে ৯টার দিকে  জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী প্রয়োজনীয় বাজার নিয়ে বাসায় ফিরছিলেন। এসময় কবি নজরুল কলেজের পাশে উইনস্টন গলিতে প্রবেশ করলে নির্জন রাস্তার সুযোগে তাকে আক্রমণ করে এক যুবক। তখন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর চিৎকারে ঢাকা মহানগর মহিলা কলেজের দিকে দৌঁড়ে পালায় ওই যুবক। এঘটনায় ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী প্রথমে সূত্রাপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি ও পরে মামলা দায়ের করেন। 
তবে মামলা দায়েরের পর ১৮দিন হলেও আসামি গ্রেফতার না হওয়ায় এটি নিয়ে ক্ষোভ ও উৎকন্ঠা প্রকাশ করেছেন ওই শিক্ষার্থীর সহপাঠী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষার্থীরা। এ ঘটনায় অতি দ্রুত অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তারা।
তবে পুলিশের দাবি মামলার পর ঘটনাস্থল ও আশেপাশের এলাকা থেকে সন্দেহভাজন অনেককে আটক করা হলেও ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী কাউকে শনাক্ত করতে না পারায় মূল আসামিকে গ্রেফতারে সময় লাগছে। তবে গ্রেফতারে এখনো প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে । 
এ বিষয়ে সূত্রাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুনুর রহমান বলেন, মামলার তদন্ত কার্যক্রম এখনো চলছে। মামলার পরেই আমরা সন্দেহভাজন কয়েকজনকে আটক করে ভিক্টিমকে দেখিয়েছি। কিন্তু সে কাউকে শনাক্ত করতে পারেনি৷ ফলে একটু বিলম্ব হচ্ছে। তবে মূল অভিযুক্তকে গ্রেফতার করার জন্য আমাদের চেষ্টা অব্যাহত আছে। বিভিন্নভাবে আমরা এখনো চেষ্টা চালাচ্ছি। 
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মোস্তফা কামাল বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমি পুলিশের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ করছি। ছাত্রীর দেয়া তথ্য অনুযায়ী পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে। ছাত্রী অভিযুক্তকে শনাক্ত করতে পারলেই পুলিশ আইনের আওতায় নিয়ে আসবে। 

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*