Thursday , 29 July 2021
ব্রেকিং নিউজ
Home » জাতীয় » আখাউড়ায় মানুসিক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ

আখাউড়ায় মানুসিক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি।। 
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলায় এক মানসিক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে (২০) ধর্ষনের  চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। 
শুধু তা ই নয়, আইনগত ব্যবস্থা নিবে বলে ওই কিশোরীর পরিবারের উপর হামলা চালানো হয়। পরে পুলিশ গিয়ে ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে। 
শনিবার (১৭ জুলাই) ভোরে ২৫০শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে। 
দুপুর দেড়টার দিকে ওই কিশোরীর ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। পরীক্ষা শেষে চিকিৎসকরা কিশোরীর সাথে ঘটনাটি অমানবিক বলে মন্তব্য করেছেন। 
এরআগে শুক্রবার সন্ধ্যায় উপজেলার মনিয়ন্ধ ইউনিয়নের মনিয়ন্ধ চৌধুরী বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে। 
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই কিশোরীর মা সূত্রে জানা যায় , তার মেয়েটি মানসিক প্রতিবন্ধী। তার স্বামী দিন মজুরের কাজ করেন। কিশোরীর মা আশপাশের বাড়িঘরে কাজ করে সামান্য আয়ে চলতেন। মেয়েটি মানসিক ভাবে প্রতিবন্ধী হলেও সে একটি স্কুলে পড়াশোনা করেন। স্থানীয় স্কুল থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল। গত শুক্রবার পাশের একটি বাড়িতে ছোট একটি অনুষ্ঠান ছিল। কিশোরীকে একা ঘরে রেখে পাশের বাড়িতে যায় তার মা। সন্ধ্যার দিকে মাগরিবের আযান দিলে ওই কিশোরী ঘরের দরজা খুলে ওজু করতে যায়। এই সুযোগে পাশের বাড়ির বিল্লাল চৌধুরীর ছেলে হৃদয় (২৮) ঘরে ঢুকে যায়। কিশোরীটি ওজু করে ঘরে ঢুকার পর হৃদয় তাকে ঝাপটে ধরে। পরে ঘরে ঢুকে হৃদয়ের চাচাতো ভাই নোবেল চৌধুরীর ছেলে ইমরান (২১)। তারা দুইজন ওই কিশোরীকে ধর্ষনের চেষ্টায় ঝাপটা-ঝাপটি করে৷ এসময় সে বাধাঁ দেওয়ায় তাকে মাটিতে ফেলে মারধর কিল-ঘুষি-লাথিসহ অমানবিক ভাবে মারধর করে। তাদের মারধরে কিশোরীটি চিৎকার শুরু করলে মেয়ের আত্মচিৎকারে পাশের বাড়িতে থাকা তার মা দৌড়ে বাড়িতে এসে দেখেন ঘরের ভেতরে হৃদয় ও ইমরানকে। তাদেরকে ওই কিশোরীর মা ঘরে ঢুকার কারণ জিজ্ঞাস করলে দুইজন মিলে তাকে মারধর বেদম প্রহার করে পালিয়ে যান। রাতে মা-মেয়ে হাসপাতালে এসে চিকিৎসা নিতে চাইলে হৃদয় ও ইমরানের পরিবারের লোকজন তাদের বাড়ি ঘরে হামলা করে অবরুদ্ধ করে ফেলে। পরে পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। শনিবার ভোরে কিশোরীর শারীরিক অবস্থা অবনতি হলে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করে। শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে নির্যাতনের শিকার ওই কিশোরীর ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। 
২৫০ শয্যা বিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের গাইনি চিকিৎসক ফৌজিয়া জাফরিন টিকলী ওই কিশোরীকে পরীক্ষা শেষে বলেন, এই কিশোরীর সাথে যা করা হয়েছে, তা কোন মানুষ করতে পারেন না। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আমরা সবকিছু লিখে রেখেছি। সে মানসিক ভাবে আরও ভেঙে পড়েছে। তার উপর দিয়ে একপ্রকার ঝড় গেছে। ধারণা করা যাচ্ছে তার সাথে জোরজবরদস্তি করা হয়েছে’।
এই বিষয়ে আখাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, ‘কোন অলিখিত অভিযোগ পায়নি’। তিনি বলেন, চিকিৎসকদের বক্তব্য আমাদের অফিসিয়ালি জানালে আমরা সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিব। অভিযোগ পেলে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিব’। 

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*