Monday , 15 July 2024
E- mail: news@dainiksakalbela.com/ sakalbela1997@gmail.com
ব্রেকিং নিউজ
বাবার ইচ্ছা পূরণে দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নির্মান শেষে উদ্বোধনের পর নামাজ কায়েম শুরু হয়েছে

বাবার ইচ্ছা পূরণে দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নির্মান শেষে উদ্বোধনের পর নামাজ কায়েম শুরু হয়েছে

আকরামুজ্জামান আরিফ কুষ্টিয়া প্রতিনিধি :

 বৃদ্ধ বাবা শিল্পপতি ছেলেকে একদিন বলেছিল যে, তোমার কাছে আমার কিছু চাওয়ার নেই।শুধু আমাদের গ্রামে একটা ভাল মসজিদ নির্মাণ করে দিতে হবে। ‘তাই বাবার একমাত্র ইচ্ছা পূরণ করতে ছেলে প্রায় ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে দৃষ্টিনন্দন মসজিদ ঘর নির্মাণ করেন। নির্মান শেষে গত ১১  মার্চ শুক্রবার মসজিদটি উদ্বোধন করেন ধার্মিক বআবার শিল্পপতি ছেলে মোঃ সেখ সাদী। উদ্বোধনের পর থেকে মসজিদটিতে নামাজ কায়েম  শুরু হয়েছে। মসজিদটিতে নামাজ কায়েম করে এলাকার সকল স্তরের মুসল্লীরা খুশি হয়ে ধার্মিকবাবা ও তার শিল্পপতি ছেলের জন্য মন খুলে দোয়া করছেন। ১৫ কাঠা জমির উপর মসজিদটি কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার নন্দনালপুর ইউনিয়নের সদরপুর গ্রামের দক্ষিণপাড়ায় অবস্থিত। সেই ধার্মিক বাবার নাম মোঃ আলিমুদ্দিন শেখ (৮৭)।তিনি ওই এলাকারই বাসিন্দা এবং শিল্পপতি ছেলের নাম মোহাম্মাদ শেখ সাদী। তিনি ঢাকাস্থিত শীর্ষস্থানীয় রিয়েল এস্টেট কোম্পানি এশিউর গ্রুপের চেয়ারম্যান।জানা গেছে, ১৯৮৭ সাল থেকে ওই এলাকার ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা একটি জরাজীর্ণ মসজিদে ধর্মপালন করে আসছিল। ওই এলাকার বাসিন্দা হিসেবে আজিজুর রহমানও ওই মসজিদে নামাজ কালাম করতেন। মসজিদের ভবণ ও পারিপার্শ্বিক অবস্থা দেখে শিল্পপতি ছেলে মোহাম্মদ শেখ সাদী’র কাছে একটা ভাল মসজিদ ঘর নির্মাণের ইচ্ছা পোষণ করেন। বাবার ইচ্ছে পূরণ করতে ২০১৯ সালে প্রায় তিন কোটি টাকা ব্যয়ে দৃষ্টিনন্দন মসজিদ ঘর নির্মাণের কাজ শুরু করেন ছেলে। দোতলা বিশিষ্ট মসজিদের ছাদের চার কোনায় রয়েছে ১৯ ফিট উচ্চতায় ৪ ফিট দৈর্ঘ্য ও ৪ ফিট প্রস্থের চারটি মিনার ও মাঝখানে রয়েছে মিনারের সমউচ্চতায় ২৫ ফিট ডায়া একটি বড় গম্বুজ।গম্বুজের পাশেই রয়েছে একটি ছোট্ট কক্ষ। মসজিদের ফ্লোরে ব্যবহৃত হয়েছে ইন্ডিয়ান মার্বেল পাথর আর জানালায় ব্যবহার হয়েছে থাই গ্লাস। মসজিদটিতে গ্রিলফুল ও স্লাডিং সহ মোট ৭০ টি জানালা রয়েছে। নিচতলা ৩৩ টা ও দেতলায় ৩১ টা সহ মোট ফ্যান রয়েছে ৬৪ টি। ধর্মীয় বিভিন্ন কারুকাজ করা মোট ৬ টা কাঠের মোটা দরজা স্থাপন করা হয়েছে দৃষ্টিনন্দন এই মসজিদে। তন্মধ্যে প্রধান ফটকের প্রবেশ পথে তিনটা এবং বারান্দায় তিনটা। মসজিদের চারপাশে রয়েছে পাকা বাউন্ডারি দেওয়াল।দেওয়ালে ৪৯ টি সুসজ্জিত লাইটসহ মোট লাইট রয়েছে ৯৪ টি। বাউন্ডারির মধ্যে মসজিদ কমপ্লেক্সটির পাশেই রয়েছে একটি নূরানি হাফেজিয়া মাদ্রাসা।ব্যবসায়ীক কাজে ব্যস্ত থাকায় এশিউর গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মাদ শেখ সাদী’র সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে এতথ্য নিশ্চিত করে মসজিদটি নির্মাণ কাজের ইঞ্জিনিয়ার আজাদ মুঠোফোনে বলেন, বাবার ইচ্ছে পূরণ করতে শেখ সাদী সাহেব তিনকোটি টাকা ব্যয়ে মসজিদটি নির্মাণ করেছেন।অফিসের অনুমতি ছাড়া এখনই এর বেশি কিছু বলা যাচ্ছেনা।তবে মসজিদটি এখনও উদ্বোধনের অপেক্ষায়।এবিষয়ে দৃষ্টিনন্দন মসজিদের খতিব হাফেজ ক্বারী মাওঃ মাসুম বিল্লাহ্ বলেন, আমি দেশের বিভিন্ন জেলা ঘুরেছি, অনেক মসজিদে নামাজ পড়েছি, তবে এত সুন্দর মসজিদ কোথাও দেখিনি। তিনি আরো বলেন, মোহাম্মাদ শেখ সাদী সাহেব বাবার ইচ্ছায় মসজিদটি নির্মাণ করেছেন এলাকাবাসীর জন্য।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply