ব্রেকিং নিউজ
Home » দৈনিক সকালবেলা » বিভাগীয় সংবাদ » জেলার-খবর » শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাশেই বর্জ্যের স্তূপ
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাশেই বর্জ্যের স্তূপ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাশেই বর্জ্যের স্তূপ

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাশের সড়কেই ময়লা-আবর্জনার বিশাল স্তূপ। সেখান থেকে ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ । কাপড়ে নাক ঢেকে চলছে শিক্ষার্থীসহ পথচারীরা। লক্ষ্মীপুরের চন্দ্রগঞ্জ থানা শহরের ক্যামব্রিজ সিটি কলেজসহ স্কুল- মাদ্রাসার ভবনের পাশের প্রতিদিনের চিত্র এটি। এতে করে পরিবেশ ব্যাপকভাবে দূষিত হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, চন্দ্রগঞ্জ বাজারের আফজাল রোডের পাশে বেশ করেকটি স্থানে বাজারের ছোট বড় সব ধরনের ব্যবসায়ীরা এবং বাসা-বাড়িতে বসবাসরত মানুষেরা তাদের ময়লা আবর্জনা গুলো রাস্তার ধারে ফেলে। এভাবে ফেলতে ফেলতে এখন জায়গা গুলো বর্জ্যের স্তূপে পরিনত হয়েছে।

ক্যামব্রিজ সিটি কলেজের বেশকয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, ‘প্রতিদিন এ রাস্তা দিয়ে আমাদের কলেজে যাতায়াত করতে হয়। রাস্তার পাশে ময়লা আবর্জনার স্তূপ থেকে উৎকট দুর্গন্ধ ছড়ায়। ফলে ওই স্থান দিয়ে যাওয়া কষ্টকর।’

পথচারী আরমান হোসেন বলেন , আফজাল রোড পার হয়ে মদিনাতুল কোরআন নুরানি মাদরাসার সামনে এলেই যেন দম বন্ধ হয়ে যায়। বর্জ্য গুলো পঁচে এতটাই দূর্গন্ধ সৃষ্টি হয়েছে যে পথচারী চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

স্থানীয় কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, ‘আমাদের বর্জ্য ফেলার জন্য কোন ডাস্টবিন বা নিদিষ্ট স্থান দেওয়া হয়নি। এছাড়াও এখানে বেশির ভাগ বর্জ্য আশেপাশের বাসাবাড়িতে বসবাসরত মানুষেরা ফেলে। এমন অবস্থায় এখানে ব্যবসা বানিজ্য করাও কষ্টকর হয়ে পড়ে।

সুজন চন্দ্রগঞ্জ শাখার সাধারণ সম্পাদক সৌমির কর্মকার বলেন, শহরের প্রবেশমুখে এমন ময়লার ভাগাড় চন্দ্রগঞ্জের সৌন্দর্য সম্পর্কে পার্শ্ববর্তী অনান্য জেলার বাসিন্দাদের নেতিবাচক বার্তা দিচ্ছে। তাছাড়া শহরের মধ্যে এমন ময়লার স্তূপ থাকায় আশেপাশের মানুষের চলাচলের অসুবিধা হচ্ছে।

চন্দ্রগঞ্জ বাজার পরিচালনা কমিটির সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক বাবুল হোসেন বলেন, চন্দ্রগঞ্জ বাজারটি অনেক বড় বাজার। এখানে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বাসাবাড়ির সংখ্যাও অনেক বেশি। আমরা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ময়লা গুলো ২ জন মালি দিয়ে প্রতিদিন নিদিষ্ট স্থানে ফেলার ব্যবস্থা করলে বাসা বাড়িতে অবস্থান করা মানুষেরা তাদের ময়লা আবর্জনা গুলো ফেলার জন্য কোন ডাস্টবিন বা অন্য কোন ব্যবস্থা না করায় তারা যেখানে সেখানে ময়লা ফেলে। এতে করে বাজারের বিভিন্ন স্থানে ময়লার স্তূপ দেখা যায়। এই ব্যপারে বাড়ির মালিকদের সাথে দ্রুত আলোচনায় বসে সমাধানের চেষ্টা করবো।

জানতে চাইলে চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন বলেন, সুস্থ ও সুন্দর পরিবেশ নিশ্চিত করতে যেখানে-সেখানে ময়লা-আবর্জনা ফেলা বন্ধ করতে হবে। আশেপাশের বাড়ির মালিকদের সঙ্গে কথা বলে নিদিষ্ট স্থানে ডাস্টবিনের ব্যবস্থা করতে বলবো।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com