ব্রেকিং নিউজ

অনলাইন ডেস্ক:

ঘটনাবহুল ৭ নভেম্বর আজ। ১৯৭৫ সালের শেষ দিকে দ্রুত রাজনৈতিক রক্তাক্ত উত্থান-পতনের ঘটনাবলির মধ্যে এদিন তৎকালীন সেনাপ্রধান জিয়াউর রহমান ক্ষমতা সংহত করেন। বিএনপির মতে, পঁচাত্তর সালের এই দিনে আধিপত্যবাদী শক্তির নীলনকশা প্রতিহত করে সিপাহি-জনতা স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে রক্ষা করেছিল।

বিএনপি দিনটিকে ‘জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস’ হিসেবে পালন করলেও জাসদ ‘সিপাহি-জনতার অভ্যুত্থান দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে।

বিএনপি মনে করে, সিপাহি-জনতার বিপ্লবের মাধ্যমে জিয়াউর রহমান বন্দিদশা থেকে মুক্ত হয়ে ক্রান্তিকালে শক্ত হাতে দেশ পরিচালনা করেছেন।

জাসদের মতে, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর থেকে সেনাবাহিনীর অভ্যন্তরে উচ্চাভিলাষী কর্মকর্তাদের ক্ষমতা দখল-পুনর্দখলের জন্য পরস্পরবিরোধী অবস্থানের প্রেক্ষাপটে ইতিহাসের এই দিনে সিপাহি-জনতার অভ্যুত্থান ঘটেছিল।

কয়েকটি সংগঠন ‘মুক্তিযোদ্ধা সৈনিক হত্যা দিবস’ হিসেবে দিনটিকে পালন করে থাকে। তাদের মতে, সিপাহি বিপ্লবের নামে এদিন থেকে শুরু হয় মুক্তিযোদ্ধা সেনা সদস্যদের হত্যা প্রক্রিয়া। শেষ হয় ১৯৮১ সালের ৩০ মে জিয়াউর রহমান হত্যাকাণ্ডের মধ্য দিয়ে।

১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারবর্গের আয়োজনে আজ সোমবার সকাল ১১টায় ঢাকায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে ‘৭ নভেম্বর : মুক্তিযোদ্ধা সৈনিক হত্যা দিবস’ শীর্ষক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হবে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বলে আয়োজকরা জানিয়েছেন।

‘জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস’ উপলক্ষে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বাণী দিয়েছেন। আজ সকাল ১১টায় সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন দলের নেতাকর্মীরা। দুপুর ২টায় নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ‘উন্মুক্ত আলোচনাসভার’ আয়োজন করেছে বিএনপি।

এদিকে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ ‘সিপাহি-জনতার অভ্যুত্থান দিবস’ হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে সেক্টর কমান্ডার জাসদ নেতা কর্নেল তাহের বীর-উত্তমের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণসহ নানা কর্মসূচি পালন করবে।

About Syed Enamul Huq

Leave a Reply

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com